বৃহস্পতিবার , ২০ অক্টোবর ২০২২ | ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯
  1. অর্থনীতি
  2. আন্তর্জাতিক
  3. খুলনা বিভাগ
  4. খেলাধুলা
  5. চট্টগ্রাম বিভাগ
  6. জাতীয়
  7. ঢাকা বিভাগ
  8. প্রচ্ছদ
  9. ফিচার
  10. বরিশাল বিভাগ
  11. বিনোদন
  12. মতামত
  13. ময়মনসিংহ বিভাগ
  14. রংপুর বিভাগ
  15. রাজনীতি

৫৪ লাখ টন জ্বালানি তেল কিনবে সরকার

প্রতিবেদক
BanglarKotha-বাংলারকথা
অক্টোবর ২০, ২০২২ ১২:১৯ অপরাহ্ণ

নিউজ ডেস্ক :
আগামী বছরের জন্য আন্তর্জাতিক বাজার থেকে ৫৪ লাখ ৬০ হাজার টন জ্বালানি তেল আমদানির প্রস্তাবে সবুজ সংকেত দিয়েছে অর্থনৈতিক বিষয়-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। গতকাল বুধবার কমিটির সাপ্তাহিক বৈঠকে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের (বিপিসি) প্রস্তাব অনুমোদনের সুপারিশ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব রাহাত আনোয়ার।

বৈঠকে ১৬ লাখ টন অপরিশোধিত জ্বালানি তেল এবং ৩৮ লাখ ৬০ হাজার টন পরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানির আলাদা দুটি প্রস্তাব এদিন বৈঠকে তোলে বিপিসি।

বৈঠক শেষে অতিরিক্ত সচিব রাহাত আনোয়ার সাংবাদিকদের বলেন, ২০২৩ সালের জন্য সৌদি আরামকো এবং আবুধাবির কোম্পানি এডনকের কাছ থেকে সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে ১৬ লাখ টন অপরিশোধিত জ্বালানি তেল আমদানির প্রস্তাব নীতিগত অনুমোদনের জন্য সুপারিশ করা হয়েছে।

আরেক প্রস্তাবে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক বাজার থেকে জিটুজি ভিত্তিতে ৩৮ লাখ ৬০ হাজার টন পরিশোধিত জ্বালানি তেল সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে আমদানির প্রস্তাবও নীতিগত অনুমোদনের সুপারিশ করেছে মন্ত্রিসভা কমিটি।

ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধ শুরুর পর বিশ্বে জ্বালানি তেলের দাম দীর্ঘদিন ধরে ঊর্ধ্বমুখী থাকায় তা সারাবিশ্বে অর্থনীতির জন্য দুশ্চিন্তার কারণ হয়েছে দাঁড়িয়েছে। কয়েক মাস ধরে অপরিশোধিত জ্বালানি তেলের দাম প্রতি ব্যারেল ১০০ ডলারের আশেপাশে ঘোরাফেরা করছে। যুদ্ধের আগে এই দাম ৬০ থেকে ৭০ ডলারের মধ্যে ছিল।

রাষ্ট্রীয় তেল কোম্পানি বিপিসির হিসাবে, ২০২১-২২ অর্থবছরে দেশে প্রায় ৬৭ লাখ টন জ্বালানির প্রয়োজন হয়েছিল। এ চাহিদা প্রতিবছরই সাত থেকে আট শতাংশ হারে বাড়ছে। মোট চাহিদার মধ্যে দেশীয় উৎস থেকে প্রায় ছয় থেকে সাত লাখ টন জ্বালানির জোগান আসে ওই বছর। সরকারি পরিশোধন কোম্পানি ইস্টার্ন রিফাইনারিতে বছরে ১৫ লাখ টন অপরিশোধিত জ্বালানি পরিশোধন করার সক্ষমতা রয়েছে।

এদিন সরকারি ক্রয়-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির আলোচ্যসূচির মধ্যে ছিল রাষ্ট্রীয় বিপণন সংস্থা টিসিবির জন্য পণ্য কেনার তিনটি প্রস্তাব এবং বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশনের (বিএডিসি) জন্য সার কেনার দুটি প্রস্তাব।

অতিরিক্ত সচিব জানান, মেঘনা এডিবল অয়েলের কাছ থেকে উš§ুক্ত দরপত্রের ভিত্তিতে ১৮৯ কোটি তিন লাখ ৫০ হাজার টাকায় এক কোটি ১০ লাখ লিটার সয়াবিন তেল কেনার একটি প্রস্তাব অনুমোদন করা হয়েছে।

এতে প্রতি লিটার তেলের দাম পড়বে ১৭১ টাকা ৮৫ পয়সা, যা আগের কেনাকাটায় ১৮৫ টাকা ছিল। অর্থাৎ দাম কমে আসায় লিটারে ১৪ টাকা করে সাশ্রয় হবে।

আরেকটি ক্রয় প্রস্তাবে উন্মুক্ত দরপত্রের মাধ্যমে সুপার অয়েল রিফাইনারির কাছ থেকে ৮৭ কোটি ৯৭ লাখ ২৫ হাজার টাকায় ৫৫ লাখ লিটার সয়াবিন তেল কেনার অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এতে প্রতি লিটার তেলের দাম পড়েছে ১৫৯ টাকা ৯৬ পয়সা, যাতে আগের মূল্যের চেয়ে লিটারে ২৫ টাকা সাশ্রয় হচ্ছে।

আন্তর্জাতিক উš§ুক্ত দরপত্রের মাধ্যমে তুরস্কের একটি কোম্পানির কাছ থেকে আট হাজার টন মসুর ডাল ৭০ কোটি ৯৮ লাখ ৬৬ হাজার টাকায় কেনার প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে এদিন। প্রতি কেজির দাম দাঁড়াচ্ছে ৮৮ টাকা ৭৩ পয়সা। এর আগের কেনাকাটায় ১১০ টাকা কেজি দরে মসুর ডাল কিনতে হয়েছিল সরকারকে।

বিএডিসির প্রস্তাবে রাষ্ট্রীয় চুক্তির আওতায় কানাডিয়ান কমার্শিয়াল করপোরেশনের কাছ থেকে ষষ্ঠ লটে ৫০ হাজার টন এমওপি সার ৪৩৭ কোটি ৫ লাখ ৯৩ হাজার ৫০০ টাকায় আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে ক্রয় কমিটি।

বিএডিসির আরেক প্রস্তাবে রাষ্ট্রীয় চুক্তির আওতায় মরোক্কোর ওসিপি এসএর কাছ থেকে নবম লটে ৪০ হাজার টন ডিএপি সার ৩০২ কোটি ৩৭ লাখ ৪৮ হাজার টাকায় আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

সর্বশেষ - প্রচ্ছদ