আজ- রবিবার, ৭ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৩শে রজব, ১৪৪২ হিজরি
বাংলার কথা
Header Banner

হল-ক্যাম্পাস খুলে দিতে রাবি শিক্ষার্থীদের আল্টিমেটাম

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp

নিজস্ব প্রতিবেদক, রাবি ০
হল-ক্যাম্পাস খোলার দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তারা প্রশাসনকে ২৪ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিয়ে বলেছে, বেধে দেয়া সময়ের মধ্যে প্রশাসন কোনো সিদ্ধান্ত না দিলে শিক্ষার্থীরা নিজেরাই সিদ্ধান্ত নেবে।

 

রবিবার (২১ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় লাইব্রেরির পেছনের আমতলা থেকে শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল বের করে। ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে উপাচার্যের বাসভবনের সামনে অবস্থান নেয় মিছিলে অংশ নেয়া শিক্ষার্থীরা।

 

অবস্থান কর্মসূচিতে বক্তারা বলেন, সব ক্লাসের শিক্ষার্থীদের অটোপাশ দিয়েছে সরকার। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে এখন পর্যন্ত সরকার কিছু ভাবছে না। অনেক দিন পর্যন্ত আমরা অপেক্ষা করছি। আর না! এভাবে আর সরকার আমাদের ঘরে বন্দি রাখতে পারবে না। বর্তমানে দেশের সবকিছুই চলছে, শুধুমাত্র শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান করোনার অজুহাত দিয়ে বন্ধ রাখছে সরকার। এভাবে আর চলবে না। সরকার কে? শিক্ষার্থীরাই সরকার। জনগণই সরকার।

 

বক্তারা আরও বলেন, আমরা অনেক শান্ত রয়েছি। তবে শান্ত বলে যে আমরা তালা ভাঙ্গাতে পারবো না, তা নয়। আমরা কতোটা অশান্ত হতে পারি, সেটা প্রশাসন জানেন না। সরকারের প্রতি অনুরোধ, আমাদের অশান্ত হওয়ার সুযোগ দিবেন না। দ্রুত ক্যাম্পাস ও হল খুলে দিয়ে শিক্ষাব্যবস্থা স্বাভাবিক করার দাবি জানান বক্তারা।

 

কর্মসূচিতে ‘এক দফা এক দাবি, হল-ক্যাম্পাস খোলা চাই’, ‘ভ্যাকসিন লাগলে ভ্যাকসিন দাও, তবু ক্যাম্পাস খোলা চাই’, ‘শিক্ষা নিয়ে প্রহসন, মানি না’, ‘লাঠি মার ভাঙরে তালা, হলের ওই বন্দিশালা’- এসব স্লোগান দেয় শিক্ষার্থীরা।

 

 

অবস্থান কর্মসূচিতে নৃবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী মহিউদ্দিন মানিক বলেন, ক্যাম্পাস বন্ধ থাকায় আমাদের শিক্ষাজীবন প্রায় স্থবির হয়ে পড়েছে। ক্যাম্পাস বন্ধ থাকলেও বেশিরভাগ শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে চলে এসেছে এবং তারা মেসে থাকতে শুরু করেছে। প্রশাসন আজ আমাদের নিয়ে আর ভাবছে না, যদি প্রয়োজন হয় ভ্যাক্সিন দিয়ে হলেও আমাদের ক্যাম্পাস খুলে দিতে হবে। আমাদের লাগাতার এই আন্দোলনের লক্ষ্য হলো হল ও ক্যাম্পাস খুলে দেয়া এবং শিক্ষার স্বাভাবিক পরিবেশ নিশ্চিত করা।

 

ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের শিক্ষার্থী মাহমুদ সাকী বলেন, শিক্ষকদের কোন কিছু বন্ধ নেই, বন্ধ শুধু আমাদের জীবন ও যৌবন। করোনার কারণে শুধু বন্ধ শিক্ষা ব্যবস্থা। আমরা ধুকে ধুকে মরছি। উপাচার্যকে লক্ষ্য করে তিনি আরও বলেন, আমরা অনেক শান্ত, কিন্তু কতোটা অশান্ত তা আপনি কল্পনাও করতে পারবেন না। আমাদের নিয়ে ভাবুন, নয়তো এই জনস্রোত থামিয়ে রাখতে পারবেন না।

 

অবস্থান কর্মসূচিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী কাদির জিলানীর সঞ্চালনায় বিভিন্ন বিভাগের শতাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেয়।

 

 

বাংলার কথা/ফেব্রুয়ারি ২১, ২০২১

এই রকম আরও খবর

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn