আজ- শুক্রবার, ২৬শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৪ই রজব, ১৪৪২ হিজরি
বাংলার কথা
Header Banner

সেই শাহিনাকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন জেলা প্রশাসক

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp


মাসুদ রানা রাশেদ, লালমনিরহাট o

হাতীবান্ধা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে ফোন দিয়ে ডেকে নিয়ে গিয়ে নিজের বাল্যবিয়ে বন্ধ করে দেয়া সেই শিক্ষার্থী শাহিনা আক্তারকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর।

আজ সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) সকালে লালমনিরহাট জেলার হাতীবান্ধা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়ে তাকে ডেকে নিয়ে নগদ ১৫হাজার টাকাসহ বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী বই উপহার দেন জেলা প্রশাসক আবু জাফর।

এ সময় হাতীবান্ধা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সামিউল আমিন, হাতীবান্ধা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মশিউর রহমান মামুন, সির্ন্দুনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নুরল আমিন, হাতীবান্ধা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ফেরদৌস আহম্মেদ, হাতীবান্ধা উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মাহবুব আলম উপস্থিত ছিলেন।

শাহিনা আক্তার হাতীবান্ধা আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০শ্রেণির শিক্ষার্থী ও হাতীবান্ধা উপজেলার উত্তর ধুবনী গ্রামের সাইরুদ্দিনের কন্যা। অতি সম্প্রতি শাহিনা আক্তারকে তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে বাল্যবিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেন তার বাবা-মা। উপায় না পেয়ে শাহিনা আক্তার বাড়ি থেকে পালিয়ে তার এক বান্ধবীর বাড়িতে আশ্রয় নেয়। বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেতে প্রথমে হাতীবান্ধা থানার ওসি এরশাদুল আলমকে ফোন করে সহযোগিতা চান ওই শিক্ষার্থী। তার কাছে তেমন সহযোগিতা না পেয়ে হাতীবান্ধার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সামিউল আমিনকে ফোন করে বাল্যবিয়ে থেকে রক্ষা পেতে সহযোগিতা কামনা করেন।

এ সংক্রান্ত একটি সংবাদ অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘বাংলার কথা’- সহ ভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে নড়েচড়ে বসে স্থানীয় প্রশাসন।

পরে হাতীবান্ধা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সামিউল আমিন, হাতীবান্ধা থানার ওসি এরশাদুল আলমকে সাথে নিয়ে প্রথমত শাহিনা আক্তারকে তার বান্ধবীর বাড়ি থেকে উদ্ধার করেন। পরে হাতীবান্ধা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সামিউল আমিন নিজ গাড়িতে করে শাহিনাকে নিয়ে তার বাড়িতে হাজির হন। এ সময় তার বাবা সাইরুদ্দিনের কাছ থেকে মুচলেকা নিয়ে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য আইয়ুব আলীর জিম্মায় দেন শাহিনা আক্তারকে।

হাতীবান্ধা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সামিউল আমিন বলেন, শাহিনা আক্তার নিজের বাল্যবিয়ে ঠেকিয়ে আমাদের সমাজকে বুঝিয়ে দিয়েছেন নারীরা সমাজে প্রতিষ্ঠিত হতে চায়। আর যেন একটি মেয়েরও বাল্যবিয়ে না হয় সেজন্য আমাদের সবাইকে একসাথে কাজ করতে হবে।

বাংলার কথা/ সেপ্টেম্বর ১৪, ২০২০

এই রকম আরও খবর

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn