বুধবার , ৯ নভেম্বর ২০২২ | ১৫ই মাঘ, ১৪২৯
  1. অর্থনীতি
  2. আন্তর্জাতিক
  3. খুলনা বিভাগ
  4. খেলাধুলা
  5. চট্টগ্রাম বিভাগ
  6. জাতীয়
  7. ঢাকা বিভাগ
  8. প্রচ্ছদ
  9. ফিচার
  10. বরিশাল বিভাগ
  11. বিনোদন
  12. মতামত
  13. ময়মনসিংহ বিভাগ
  14. রংপুর বিভাগ
  15. রাজনীতি

শেরপুরে ৩৫ হাজার চাষি পাচ্ছে কৃষি প্রণোদনা

প্রতিবেদক
BanglarKotha-বাংলারকথা
নভেম্বর ৯, ২০২২ ৫:১৩ অপরাহ্ণ

নিউজ ডেস্ক :
শেরপুর জেলায় রবি মৌসুমে কৃষি পুর্নবাসনের আওতায় ৩৫ হাজার ২২০ জন প্রান্তিক চাষি প্রণোদনা পাচ্ছেন। এই কর্মসূচির আওতায় গম, ভুট্টা, সরিষা ও শীতকালীন পেঁয়াজসহ বিভিন্ন ফসলের বীজ এবং রাসায়নিক সার পাচ্ছেন তারা।

সূত্র জানিয়েছে, এক মাস ধরে শেরপুরের কৃষি বিভাগ এলাকা ঘুরে ঘুরে কৃষক নির্বাচন করে বিগত তিনদিন ধরে নির্বাচিত কৃষকদের হাতে প্রণোদনার কৃষি উৎপাদন বীজ ও সার তুলে দিচ্ছেন। কৃষি বিভাগ সূত্র জানিয়েছে, বিশ্বব্যাপী সংকট বিবেচনায় দেশের ভবিষ্যত সংকট উত্তোরণের জন্য জেলায় কৃষকদের মাঝে এই প্রণোদনা প্রদান করা হচ্ছে।

শেরপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, জেলায় ২০২২-২৩ অর্থবছরে রবি মৌসুমে গম, ভুট্টা, সরিষা, সূর্যমুখী, চিনাবাদাম, সয়াবিন, শীতকালীন পেঁয়াজ, মুগ, মসুর ও খেসারির আবাদ ও উৎপাদন বৃদ্ধির জন্য এ প্রণোদনার আওতায় কৃষকরা বিনামূল্যে বীজ ও সার পাবেন। প্রত্যেককে (বিভাগ ওয়ারি ভাগ করে) সরিষা চাষিদের ১ কেজি করে সরিষা বীজ, ১০ কেজি করে ডিএপি এবং এমওপি সার, গম চাষিদের ২০ কেজি করে গম বীজ, ১০ কেজি করে ডিএপি এবং এমওপি সার।ভুট্টা চাষিদের ২ কেজি করে ভুট্টা বীজ, ২০ কেজি করে ডিএপি ও ১০ কেজি করে এমওপি সার, পেয়াজ চাষিদের ১ কেজি করে শীতকালীন পেঁয়াজ বীজ, ১০ কেজি করে ডিএপি এবং এমওপি সার দেওয়া হচ্ছে। একজন কৃষক এক বিঘা জমিতে চাষের জন্য প্রয়োজনীয় বীজ ও সার পাবেন। কৃষি মন্ত্রণালয়ের নিয়মিত বাজেট কৃষি পুনর্বাসন সহায়তা খাত থেকে এই প্রণোদনা দেওয়া হচ্ছে।
জেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের ডেপুটি পরিচালক ড. স্বকল্প দাস বলেন, সরকার চাষিদের উৎপাদনে উৎসাহিত করতেই এই প্রণোদনার ব্যবস্থা করেছে। শেরপুর কৃষি বিভাগ উৎপাদনের শুরু থেকে উৎপাদিত পণ্য কৃষকের ঘরে পৌঁছানো পর্যন্ত মাঠে থাকবে।

সর্বশেষ - প্রচ্ছদ

আপনার জন্য নির্বাচিত