বৃহস্পতিবার , ১৩ অক্টোবর ২০২২ | ১৪ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯
  1. অর্থনীতি
  2. আন্তর্জাতিক
  3. খুলনা বিভাগ
  4. খেলাধুলা
  5. চট্টগ্রাম বিভাগ
  6. জাতীয়
  7. ঢাকা বিভাগ
  8. প্রচ্ছদ
  9. ফিচার
  10. বরিশাল বিভাগ
  11. বিনোদন
  12. মতামত
  13. ময়মনসিংহ বিভাগ
  14. রংপুর বিভাগ
  15. রাজনীতি

রূপচর্চার কথা বলে বিউটিশিয়ানকে বাসায় ডেকে ধর্ষণ

প্রতিবেদক
BanglarKotha-বাংলারকথা
অক্টোবর ১৩, ২০২২ ৪:৪০ অপরাহ্ণ

নিউজ ডেস্ক :
ঢাকার শুক্রাবাদে এক বিউটিশিয়ানকে দলবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় দু’জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

বুধবার (১২ অক্টোবর) তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার দুজন হলেন- মো. রিয়াদ (২৪), ইয়াছিন হোসেন ওরফে সিয়াম (২৩)। পুলিশ জানিয়েছে, গ্রেপ্তার দু’জন বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী।

বৃহস্পতিবার (১৩ অক্টোবর) বিকেলে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার এইচ এম আজিমুল হক তাঁর কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান।

তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, এ ঘটনায় আরও এক তরুণ ও এক তরুণী জড়িত। ওই দুজনকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। আর গ্রেপ্তার তরুণেরা ধর্ষণের জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছেন। জিজ্ঞাসাবাদে তারা বলেছেন, ধর্ষণের পর ওই নারীকে তারা মারধরও করেছেন।

গত মঙ্গলবার বাসায় রূপচর্চা সেবা নেওয়ার কথা বলে সাভার থেকে ওই নারী বিউটিশিয়ানকে শুক্রাবাদের বাসায় ডাকা হয়।

ধানমন্ডি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইকরাম আলী মিয়া বলেন, ধর্ষণের শিকার নারী সাভারে থাকেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এক তরুণী তাঁকে ফোন করে কাজ করাবেন বলে ধানমন্ডি ২৮ নম্বরে আসতে বলেন। সে অনুযায়ী পারলার কর্মী ধানমন্ডি ২৮ নম্বরে যান। সেখান থেকে ওই তরুণী পারলার কর্মীকে শুক্রাবাদের একটি বেসরকারি হাসপাতালের পাশের গলির একটি বাড়ির দোতলার বাসায় নিয়ে যান। এরপর সেখানে রিয়াদ, ইয়াছিনসহ তিনজন ওই পারলার কর্মীকে ধর্ষণ করেন।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ কর্মকর্তা এইচ এম আজিমুল হক বলেন, পারলার কর্মীকে ধর্ষণের পর তিন ধর্ষক তাকে সিএনজিচালিত একটি অটোরিকশায় তুলে দেন। এ সময় তারা ওই নারীর মুঠোফোনটি ছিনিয়ে নিয়ে যান। যে বাসায় ধর্ষণ করা হয়েছে, সেটি রিয়াদের। ঘটনার সময় তাঁর মা-বাবা বাইরে ছিলেন। পারলার কর্মীকে যে তরুণী ফোনে ডেকেছিলেন, গ্রেপ্তারের পর তার সম্পর্কে বিস্তারিত জানানো হবে। ভুক্তভোগী নারী পুলিশকে বলেছেন, ধর্ষকেরা আগ্নেয়াস্ত্রের মুখে তাকে ধর্ষণ করেন।

এদিকে ধর্ষণের শিকার নারী পারলার কর্মী ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওয়ান–স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে (ওসিসি) চিকিৎসাধীন। ওসিসির সমন্বয়ক বিলকিস বেগম বলেন, পারলার কর্মী নারী এখন মানসিকভাবে বিপর্যস্ত। তার ডাক্তারি পরীক্ষা ও ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

সর্বশেষ - প্রচ্ছদ