রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতীয় শোকদিবস পালন


নিজস্ব প্রতিবেদক ০
গভীর শোক ও শ্রদ্ধায় আজ শনিবার (১৫ আগস্ট) রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে জাতীয় শোকদিবস পালন করা হয়। দিবসের শুরুতে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে প্রশাসনভবনসহ অন্যান্য ভবনে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত ও কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়।

সকাল সাড়ে নয়টায় উপাচার্য প্রফেসর এম আব্দুস সোবহান শোক র‌্যালিসহ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এসময় উপ-উপাচার্য প্রফেসর আনন্দ কুমার সাহা, উপ-উপাচার্য প্রফেসর চৌধুরী মো. জাকারিয়া, কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান আল-আরিফ, রেজিস্ট্রার প্রফেসর এম এ বারী, প্রক্টর প্রফেসর মো. লুৎফুর রহমান ও জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক প্রফেসর প্রভাষ কুমার কর্মকারসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সেখানে তাঁরা বঙ্গবন্ধুর রুহের মাগফিরাত কামনা করে মোনাজাত করেন।

এরপর বিভিন্ন আবাসিক হল, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি, ক্যাম্পাসের স্কুলসমূহ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মূল্যবোধে বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় বঙ্গবন্ধু পরিষদসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান এবং পেশাজীবী ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন সেখানে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সকাল ১০টায় শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ সিনেট ভবনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভা। সভার শুরুতে বঙ্গবন্ধুর উপর তথ্যচিত্র প্রদর্শন ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে প্রকাশিত ‘মৃত্যুঞ্জয়ী বঙ্গবন্ধু’ শীর্ষক প্রকাশনার পাঠ উন্মোচন করা হয়।

জাতীয় শোক দিবস ২০২০ পালন কমিটির সভাপতি উপ-উপাচার্য প্রফেসর চৌধুরী মো. জাকারিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপাচার্য প্রফেসর এম আব্দুস সোবহান প্রধান আলোচক এবং উপ-উপাচার্য প্রফেসর আনন্দ কুমার সাহা আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন রেজিস্ট্রার প্রফেসর এম এ বারী।
সভায় রাবি শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর মো. আশরাফুল ইসলাম খানও বক্তব্য রাখেন। সভা সঞ্চালনা করেন জাতীয় শোক দিবস পালন কমিটির সদস্য-সচিব ও প্রক্টর প্রফেসর মো. লুৎফর রহমান।

দিবসটি উপলক্ষে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল ও শেখ রাসেল মডেল স্কুলের শিক্ষার্থীদের জন্য অনলাইনে রচনা প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া অনুষ্ঠানের অন্যান্য কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে বাদ জোহর বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে কোরআনখানি ও মিলাদ মাহফিল, সন্ধ্যা ছয়টায় কেন্দ্রীয় মন্দিরে বিশেষ প্রার্থনা এবং সন্ধায় শহীদ মিনার চত্বরে প্রদীপ প্রজ্বালন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন পেশাজীবী ও সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন নিজ নিজ কর্মসূচির মাধ্যমে দিবসটি পালন করে।

বাংলার কথা/পিআর/আগস্ট ১৫, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Follow by Email
%d bloggers like this: