আজ- সোমবার, ১৯শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৬ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৭ই রমজান, ১৪৪২ হিজরি
বাংলার কথা
Header Banner

রাজশাহী টিটিসির কম্পিউটার ল্যাবে রহস্যজনক চুরি

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp

নিজস্ব প্রতিবেদক ০
রাজশাহী টেকনিক্যাল ট্রেনিং সেন্টারের (টিটিসি) কম্পিউটার ল্যাবে রহস্যজনক চুরির ঘটনা ঘটেছে। ল্যাবের ২৯টি কম্পিউটারের মাদারবোর্ড, হার্ডডিস্ক, র‌্যাম, কুলিংফ্যান ও প্রসেসরের মতো দরকারি যন্ত্রাংশ খুলে নিয়ে গেছে চোরেরা। তবে তারা কম্পিউটারের মনিটর বা ল্যাবের আর কোনো জিনিসপত্র নিয়ে যায়নি। এ ধরণের চুরির ঘটনাকে রহস্যজনক বলে মনে করছেন টিটিসির শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

 

নগরীর শাহ মখদুম থানার পুলিশ ও টিটিসি সূত্রে জানা গেছে, রবিবার (২১ মার্চ) বিকালে নগরীর সপুরা এলাকায় টিটিসি ক্যাম্পাসের আইটি ভবনের তৃতীয় তলায় অবস্থিত কম্পিউটার ল্যাবে চুরির বিষয়টি জানাজানি হয়। এরপর নগরীর শাহমখদুম থানায় টিটিসির পক্ষ থেকে মামলা করা হয়।

 

টিটিসির প্রধান ফটক ও ভবনসহ বিভিন্ন করিডোর সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় থাকলেও চুরির দিন সিসিটিভি চালু ছিল না। পুলিশের প্রাথমিক ধারণা, বাইরের কোনো চোর এই চুরির সাথে জড়িত নয়। কম্পিউটারের দরকারি যন্ত্রাংশগুলো চুরির সাথে টিটিসি’র ভেতরের কেউ রয়েছে। এ কারণে চুরির আগে সিসিটিভি বন্ধ রাখা হয়েছিল।

 

রাজশাহী টিটিসির অধ্যক্ষ প্রকৌশলী এস এম এমদাদুল হক বলেন, রোববার বিকালে প্রশিক্ষণার্থীদের ক্লাস ছিল। ল্যাব খুলে প্রশিক্ষকরা দেখতে পান ল্যাবের ভেতরে থাকা ২৯টি কম্পিউটারের সব যন্ত্রাংশ চুরি হয়ে গেছে। তিনি বলেন, শনিবার দিনগত রাতের যে কোনো সময় ঘটনাটি ঘটে থাকতে পারে। অধ্যক্ষের দাবি, সিসি ক্যামেরার ফুটেজ হার্ডডিস্কে সেভ না হওয়ার বিষয়টি তিনি আগে জানতেন না। এই চুরির ঘটনায় তার কোনো দায় নেই বলে দাবি করেন তিনি।

 

অধ্যক্ষ বলেন, রবিবার রাতে তিনি নিজে বাদি হয়ে রাজশাহী মহানগর পুলিশের শাহ মখদুম থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আসামি করে চুরির মামলা দায়ের করেছেন। এছাড়া চুরির বিষয়টি অভ্যন্তরীণভাবে তদন্তের জন্য টিটিসির উপাধ্যক্ষ আক্তারা শাহীনকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

 

টিটিসির একাধিক সূত্র বলেছে, চারতলা নতুন ভবনটির নিচতলার প্রধান ফটকের তালা স্বাভাবিক ছিল। তবে তৃতীয় তলার ল্যাবের তালা ভাঙা পাওয়া গেছে। এই ভবনটির সিসিটিভি ক্যামেরা চালু ছিল। তবে ঘটনার সময় তা বন্ধ থাকার বিষয়টি রহস্যজনক। টিটিসির ভেতরের কেউ এ চুরিতে জড়িত বলে ধারণা করছে পুলিশও।

শাহ মখদুম থানার ওসি সাইফুল ইসলাম খান বলেন, এটি ছিচকে চোরদের কাজ নয়। ল্যাবের কম্পিউটারে বিশেষ কিছু থাকারও কথা নয়। শুধু বিক্রি করে লাভবান হওয়ার উদ্দেশ্যেই চুরি করা হয়েছে। চুরির সঙ্গে টিটিসি সংশ্লিষ্ট কেউ জড়িত থাকতে পারে বলে মনে হচ্ছে। তাকে শনাক্ত করে চুরি হওয়া কম্পিউটার সামগ্রী উদ্ধারের চেষ্টা চলছে বলে জানান তিনি।

 

বাংলার কথা/মার্চ ২২, ২০২১

 

এই রকম আরও খবর

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn