রাজশাহীর বাগমারা ছাত্রবন্ধনের মিলনমেলা ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা

নিজস্ব সংবাদদাতা ০
রাজশাহী শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে বাগমারাবাসীর মিলনমেলা ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল শুক্রবার (১৮ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় বাগমারা ছাত্রবন্ধনের উদ্যোগে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

রাজশাহীতে কর্মরত বাগমারাবাসী ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহন করে।

বাগমারা ছাত্রবন্ধনের সভাপতি ফরহাদ হোসেনের সভাপতিত্বে মিলনমেলা ও সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বাগমারা ছাত্রবন্ধনের সহ-সভাপতি জাহিদুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক জনাব আলী, যুগ্ম-সম্পাদক জহুরুল ইসলাম, অর্থ-সম্পাদক ওমর ফারুক, দফতর সম্পাদক শান্তাজ আলী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মোয়াজ্জেম হোসেন, তথ্য ও প্রযুক্তি সম্পাদক বেলাল হোসেন, কর্মসূচি ও পরিকল্পনা সম্পাদক আরিফুল ইসলাম, সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক জুয়েল রানা।

মুনিরা খাতুন মুনি ও হাবিবুর রহমানের উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন রাজশাহী মেডিকেল কলেজের (রামেক) নিউক্লিয়ার মেডিসিন ও আল্ট্রাসাইড সেন্টারের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মোশাররফ হোসেন, রেসপিটারী মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ডা. রেজাউল করিম, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) ফিশারিজ বিভাগের অধ্যাপক ড. মোস্তাফিজুর রহমান, জেলা শিল্পকলা এডাডেমির জেলা কালচারাল অফিসার ফারুকুর রহমান ফয়সল, রাবির সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডেপুটি রেজিস্ট্রার আবুল কালাম আজাদ,. বিটিসিএল রাজশাহীর উপ-সহকারি প্রকৌশলী মো. মোজ্জামেল হোসেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান রানা, নর্থ বেঙ্গল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সহকারি প্রক্টর মো. আব্দুল কুদ্দুস, এভারগ্রীন মডেল কলেজের অধ্যক্ষ ড. মো. আবু ইউসুফ সেলিমসহ ব্যবসায়ী ও বাগমারা উপজেলার অভিবাসী বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত গণমান্য ব্যক্তিবর্গ।

অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেন, বাগমারা ছাত্রবন্ধন একটি সৌর্হাদ্য-সম্প্রতির নাম। সম্পূর্ণ বিনা স্বার্থে, স্বেচ্ছাশ্রমী এই সংগঠনের সদস্যরা কাজ করে যাচ্ছেন। দেশের জন্য, নিজের এলাকার জন্য, অসহায় মানুষের জন্য কাজ করছেন। যেসব গরীব-মেধাবীরা অর্থের স্বপ্ন থেমে যাচ্ছে, তাদের পাশে দাঁড়িয়েছেন বাগমারা ছাত্রবন্ধন। অর্থ, সহানুভূতি, পরামর্শ-সঠিক দিক-নিদের্শনা দিয়ে যাচ্ছেন। সংস্কৃতি চর্চা করছেন। সংস্কৃতি চর্চা না করলে সংস্কৃতিবান মানুষ হওয়া যায় না, যা দেশের খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

মিলনমেলায় বাগমারা উপজেলার সকল স্তরের লোকের সমাগম ঘটে। নবীন-প্রবীণ, তরুণ-মেধাবীদের এই মিলনমেলার সাফল্য শুধু এই সংগঠনের নয়, বরং তা বাগমারাবাসীর জন্যও গৌরবের।

শেষে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক সন্ধ্যায় শিল্পীদের চমৎকার সঙ্গীতে দর্শকরা ব্যাপক আনন্দ উপভোগ করেন।

বাংলার কথা/পিআর/ডিসেম্বর ১৯, ২০১৫

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Follow by Email