রাজশাহীতে জীবনানন্দ কবিতা মেলা শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক ০

রাজশাহীতে শুরু হয়েছে দু’দিনব্যাপি জীবনানন্দ কবিতা মেলা-২০১৬। আজ শুক্রবার (২১ অক্টোবর) সকালে নগরীর শাহ মখদুম ডিগ্রি কলেজ চত্বরে আয়োজিত এ মেলার উদ্বোধন করেন প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক।

কবি ও লেখকদের সংগঠন ‘কবিকুঞ্জ’ পঞ্চমবারের মতো রাজশাহীতে এ মেলার আয়োজন করেছে। এতে দুই বাংলার প্রায় দেড়শ কবি-সাহিত্যিক যোগ দিয়েছেন। ‘নতুন তরঙ্গে রৌদ্রে বিপ্লবে মিলন সূর্যে রণ’ শীর্ষক এ মেলা শেষ হবে আগামীকাল শনিবার।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন রাজশাহী সদর আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা। তিনি বলেন, কবিদের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে পারলে দেশে ইতিবাচক অনেক পরিবর্তন আসবে। দেশে কোনো সন্ত্রাস-জঙ্গি থাকবে না। তাই সবার মাঝে কবিদের মতো মানসিকতা লালন করতে হবে। দুই বাংলার সংস্কৃতি যত নিবিড় করা যাবে, সাম্প্রদায়িকতা উচ্ছেদ করা ততই সহজ হবে।

অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতীয় সংগীত ও গণসংগীত পরিবেশনা করে জয়বাংলা সাংস্কৃতিক জোট। এরপর নগরীতে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রা শেষে শুরু হয় আলোচনা। এতে স্বাগত বক্তব্য দেন কবিকুঞ্জের সাধারণ সম্পাদক আরিফুল হক কুমার।

শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন, শাহ মখদুম কলেজের অধ্যক্ষ আমিনুর রহমান, রাজশাহী সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ ঘোষ, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ রাজশাহী জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক কল্পনা রায় ও রাজশাহী সাহিত্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ফারুক আহমেদ।

আলোচনায় অংশ নেন, কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক, ভাষা সৈনিক আবুল হোসেন, রাজশাহীতে নিযুক্ত ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার অভিজিৎ চট্টোপাধ্যায়, কবি জুলফিকার মতিন, ওপার বাংলার প্রখ্যাত কবি সব্যসাচী দেব, কবি অমর মিত্র প্রমুখ।

কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক বলেন, ছোট্ট একটি কবিতাও চিরকাল বেঁচে থাকে, কখনই তার মৃত্যু হয় না। যে ব্যক্তির অনুভব করার ক্ষমতা রয়েছে, তিনি কবিতা ভালোবাসেন। কিন্তু এই কবিতাকেও দুই ভাগে ভাগ করে দেয়া হয়। বলা হয়- এটি এপার বাংলার কবিতা, এটি ওপার বাংলার কবিতা! এভাবে কবিদের হৃদয়কে দ্বিখন্ডিত করে দেয়া হচ্ছে। কবিরা একটি দেশের জন্যই কবিতা লেখেন না। কবিতা লেখা হয় সবার জন্য, সব মানুষের জন্য।

দুপুরে অনুষ্ঠানের বিরতি দিয়ে প্রথম অধিবেশন শেষ হয়। বিকেল ৪টায় শুরু হয় দ্বিতীয় অধিবেশন। অধিবেশনে কবিকণ্ঠে কবিতাপাঠ, রাজশাহী আবৃত্তি চর্চাকেন্দ্র ও স্বননের আবৃত্তি পরিবেশনা ও কবিদের মঞ্চ আড্ডা অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় দিন আগামীকাল শনিবার থাকবে কবিতা ভ্রমণ, বাউল গান, কবিদের কণ্ঠে কবিতাপাঠ, আবৃত্তি ও কবিকুঞ্জ পদক প্রাপ্ত কবি মাকিদ হায়দারকে উত্তরীয়, ক্রেস্ট ও অর্থমূল্য প্রদান।

বাংলার কথা/অক্টোবর ২১, ২০১৬

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Follow by Email