আজ- বৃহস্পতিবার, ৪ঠা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৯শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২০শে রজব, ১৪৪২ হিজরি
বাংলার কথা
Header Banner

মুন্ডমালায় বিএনপি’র মেয়র প্রার্থী হিসেবে এগিয়ে সাবেক চেয়ারম্যান মোজাম্মেল

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp


তানোর প্রতিনিধি o
তানোর উপজেলার মুন্ডমালা পৌর সভায় বিএনপি’র দলীয় মেয়র প্রার্থী হবেন বাধাইড় ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান ও রাজশাহী জেলার শ্রেষ্ঠ স্বর্নপদক প্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক। এবার তিনি মুন্ডমালা পৌর সভায় দলীয় মনোনয়ন নিয়ে মেয়র পদে নির্বাচন করার জন্য অনেক আগে থেকেই প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন।
বিএনপি’র দলীয় নেতা-কর্মি ও এলাকাবাসী সুত্রে জানা গেছে, মুন্ডমালা পৌর বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক ফিরোজ কবির মেয়র পদে বিএনপি’র দলীয় মনোনয়ন নিয়ে মুন্ডমালা পৌর নির্বাচনে অংশ গ্রহন করে মুন্ডমালা পৌরসভার বর্তমান মেয়র ও তানোর উপজেলা আ’লীগ সভাপতি গোলাম রাব্বানীর কাছে বিপুল ভোটে পরাজিত হন।
ফিরোজ কবির গত নির্বাচনে পরাজিত হওয়ার পর নিরবে মাঠ ছেড়ে সরে আসেন এবং সামাজিক ও দলীয় কর্মকান্ড তেমন ভাবে অংশ গ্রহন করেন না। সেই সাথে নেতা-কর্মির পাশে না দাড়িয়ে নিজেকে নিয়ে ব্যাস্ত হয়ে পড়াসহ নারী কেলেংকারীর সাথে জড়িয়ে পড়ায় আগামী পৌর নির্বাচনে তাকে বিএপির দলীয় মনোনয়ন না দেয়ার সম্ভাবনাই বেশী।
আগামী মুন্ডমালা পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপি’র মনোনয়ন না পাওয়ার সম্ভাবনায় ফিরোক কবির করোনাকালেও মাঠে ছিলেন না এবং পৌর এলাকার কর্মহীন হয়ে পড়া বিএনপির দরিদ্র শ্রেনীর নেতা-কর্মিসহ সাধারন মানুষ ও পেশাজীবি মানুষের পাশে সহায়তা করতে তাকে দেখা যায়নি। ফলে, ফিরোজ কবিরের বিষয়ে বিএনপি’র নেতা-কর্মি সমর্থকসহ পৌর এলাকার সাধারণ মানুষের মধ্যে বিরূপ প্রভাব পড়েছে।
অপর দিকে মুন্ডমালা পৌর বিএনপি’র সাবেক সভাপতি ও বাধাইড় ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান রাজশাহী জেলার শ্রেষ্ঠ স্বর্নপদক প্রাপ্ত চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হক দীর্ঘদিন থেকেই মাঠে থেকে নেতা-কর্মিসহ সমর্থকদের বিভিন্ন ভাবে সহায়তা করছেন। সেই সাথে বিভিন্ন সামাজিক ও দলীয় কর্মকান্ড পালন করার পাশাপাশি দলীয় নেতা-কর্মিদের চাঙ্গা করে ধরে রেখেছেন।
করোনাকালে মুন্ডমালা পৌর এলাকার কর্মহীন হয়ে পড়া বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষসহ বিএনপি’র দরিদ্র শ্রেনীর নেতা-কর্মি ও সাধারণ মানুষকে তিনি বিভিন্ন খাদ্যসামগ্রী প্রদানসহ অর্থিক ভাবে সহায়তা করেছেন। ফলে, সৎ ও যোগ্য এবং ক্লিন ইমেজের বিএনপি’র এই নেতা নিজ গুনের পাশাপাশি বড় সন্তান আমেরিকা প্রবাসী হওয়ায় এবং আরেক সন্তান মুন্ডমালা বাজারের প্রসিদ্ধ কাপড় ব্যবসায়ী এবং নিজেও বর্তমানে পেট্রোল পাম্পের সৎ ভাবে ব্যবসা করায় এবং বাধাইড় ইউপি’র চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে জেলার শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান হিসেবে স্বর্নপদক অর্জন করায় মুন্ডমালা পৌর এলাকায় মোজাম্মেল হক বিষয়ে ইতিবাচক ধারনা রয়েছে।
অপর দিকে মুন্ডমালা পৌর বিএনপি’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক কাউন্সিলর আতাউর রহমান মেয়র পদে বিএনপি’র দলীয় মনোনয়ন চাইতে পারেন, কিন্তু তিনিও দীর্ঘদিন থেকে মাঠে অবস্থান করছেন না। ফলে এ কারণে তাকেও মনোনয়ন না দেয়ার সম্ভাবনায় বেশী।
সেই সাথে মুন্ডমালা পৌর বিএনপি’র আহবায়ক মাওলানা আবুল কাশেম মেয়র পদে মনোনয়ন চাইবেন কিনা তাও কেউ নিশ্চিত হয়ে কিছুই বলতে না পারলেও বিএনপি’র নেতা-কর্মিরা বলছেন মাওলানা আবুল কাশেম বয়সের দিক থেকে একেবারেই প্রবীন তার পক্ষে মেয়র পদে নির্বাচনে অংশ গ্রহন করা সম্ভব না। এদিকে বিএনপি নেতা অধ্যাপাক নুরুল ইসলাম নির্বাচনে অংশ গ্রহন করবেন না। তবে, জামায়াত নেতা মাওলানা জামিলুর রহমান জোটের পক্ষ থেকে বিএনপি’র মনোনয়ন নিবেন কিনা সেটাও পরিস্কার নয়।
বাধাইড় ইউপির চেয়ারম্যান থাকা অবস্থায় মোজাম্মেল হক জনপ্রতিনিধি হিসেবে জেলার শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান হিসেবে স্বর্নপদক পাওয়া এবং পারিবারিক ও সামাজিক অবস্থান থেকে পৌর বাসির কাছে ব্যাপক জনপ্রিয়তা রয়েছে। তিনি প্রায় প্রতিদিনই পৌর এলাকার বিভিন্ন পাড়া মহল্লাসহ হাট-বাজার ও নিজ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সাইন ফিলিং ষ্টেশনে বসেই ভোটারসহ জনসাধারনের সাথে মতবিনীময় করছেন এবং দোয়া ও সহযোগীতা চাচ্ছেন।
ফলে, হাই কমান্ডসহ স্থানীয় বিএনপি নেতা-কর্মি সমর্থকরা বলছেন মুন্ডমালা পৌরসভায় এবার মোজাম্মেল হকই হচ্ছেন বিএনপি’র দলীয় মেয়র প্রার্থী। মোজাম্মেল হককে বিএনপি’র দলীয় মনোনয়ন দেয়া হবে শীর্ষ ও স্থানীয় পর্যায়ের নেতাদের গ্রীন সিগন্যাল পেয়ে তিনি প্রতিনিয়ত স্থানীয় বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মি সমর্থকসহ সাধারণ ভোটারদের সাথে যোগাযোগ রক্ষার পাশাপাশি মেয়র পদে নির্বাচন করার প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন তিনি।
প্রতিদিনই তিনি মুন্ডমালা পৌর এলাকার পাড়া-মহল্লার চায়ের দোকানে গিয়ে ভোটারসহ জনসাধারনের সাথে সৌজন্য সাক্ষাত ও বিভিন্ন বিষয় নিয়ে মতবিনীময় করছেন। তিনি নিজেকে প্রার্থী ঘোষনা দিয়েই জনসাধারণের সমর্থন, সহযোগীতা ও দোয়া চাইতে গিয়ে বলছেন সকলে ঐক্যবন্ধ হয়ে কাজ করলে এবার মুন্ডমালা পৌরসভায় বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী মেয়র নির্বাচিত হবেন।
দীর্ঘদিন ধরে সামনের কাতারে থেকে লড়াই সংগ্রামে অগ্রনী ভুমিকায় দলের হাই কমান্ডসহ স্থানীয় নেতা-কর্মিসহ পৌরবাসীর কাছে আস্থা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন। পজেটিভ ভুমিকার মানুষ হিসেবে দলীয় নেতা-কর্মি সমর্থকসহ ভোটারদের কাছে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে মুন্ডমালায় জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছেন তিনি।
এ বিষয়ে মুন্ডমালা পৌর বিএনপি’র সাবেক সভাপতি ও বাধাইড় ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান ও রাজশাহী জেলার শ্রেষ্ঠ স্বর্নপদক প্রাপ্ত চেয়ারম্যান আগামী মুন্ডমালা পৌর নির্বাচনে বিএনপি’র দলীয় মেয়র পদে মনোনয়ন প্রত্যাশী মোজাম্মেল হক বলেন, ‘আমার জীবনে আর কোন চাওয়া পাওয়া নাই, বাকী জীবনটা জনগনের সেবা করে সকলের দোয়া নিয়ে কাটিয়ে দিতে চাই, দীর্ঘদিন থেকে বিএনপি’র রাজনীতির সাথে নিজেকে সম্পৃক্ত রেখে সামনের কাতারে থেকে লড়াই সংগ্রাম করে দলের নেতাকর্মিদেরকে ধরে রেখেছি।’
তিনি বলেন, ‘এবার মুন্ডমালা পৌর সভায় মেয়র পদে বিএনপি’র দলীয় প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন প্রত্যাশা করছি, আশা করছি এবার আমাকে মনোনয়ন দেয়া হবে, আমি জনগনের কাছে পরিক্ষিত একজন রাজনীতিবিদ ও একজন জনপ্রতিনিধি, আমি বাধাইড় ইউপি’র চেয়ারম্যান থাকা অবস্থায় সততা ও নিষ্ঠার সাথে জনগনের সেবা করেছি, জনগনসহ দলীয় নেতা-কর্মিসহ সকলের পাশে থেকে সবাইকে নিয়ে পৌরসভাকে মডেল পৌর সভা গড়ে সকলের হৃদয়ে অমোর হয়ে থাকথে চাই।’
বাংলার কথা/সাইদ সাজু/সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২০ 

এই রকম আরও খবর

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn