মিথ্যা অপবাদ দিয়ে সংবাদ প্রচার প্রতিবাদে তিন ইউপি সদস্যের সংবাদ সম্মেলন

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp

বদরগঞ্জ (রংপুর) প্রতিনিধি :
রংপুরের বদরগঞ্জে তিনজন ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে মিথ্যা তথ্য দিয়ে টিআর প্রকল্পের টাকা আতœসাতের অভিযোগ করার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার বদরগঞ্জ প্রেসক্লাব কার্যালয়ে ওই সংবাদ সম্মেলন করেন উপজেলার রাধানগর ইউনিয়ন পরিষদের ২ নম্বর ওয়ার্ডের মেম্বার আজহার আলী, ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মো. শামসুল হক ও ১ নম্বর ওয়ার্ডের শচীন্দ্র নাথ রায়। এ ঘটনায় কয়েকটি অনলাইন পত্রিকা ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে (ফেসবুক) তাদের নামে সংবাদ প্রচার করার ঘটনায় সাংবাদিক সম্মেলনে প্রতিবাদ জানান তারা।

 

লিখিত বক্তব্যে ইউপি সদস্য শামসুল হক বলেন, দিলালপুর বিন্ধিরধর জামে সমজিদে টিআর প্রকল্পের টাকা আতœসাত করা নিয়ে আমাদের তিনজনের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করা হয়। ওই মসজিদে ২০২০-২১ অর্থবছরে টেস্ট রিলিফ (টিআর) প্রকল্পের মাধ্যমে ৪৬ হাজার ২৫০ টাকা উন্নয়ন বরাদ্দ দেওয়া হয়। বিধি মোতাবেক ওই প্রকল্পের চেয়ারম্যান ছিলেন সংশ্লিষ্ট মসজিদের ইমাম মো. খয়রাত হোসেন। অথচ আমাদের বিরুদ্ধে মসজিদের টাকা আতœসাতের অভিযোগ তুলে সরকারি দপ্তরে অভিযোগ দেয়াসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচার করা হয়েছে। টাকা আতœসাতের ঘটনা আদৌ সত্য নয়। আমাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ ঢাহা মিথ্যা ও বানোয়াট। এতে আমাদের সুনাম নষ্ট হয়েছে।

 

এছাড়াও তিনি আরো বলেন, বরাদ্দের প্রথম কিস্তির ২৩ হাজার ১২৫ টাকা মসজিদের উন্নয়নের জন্য মসজিদ কমিটির সম্পাদক ইমরান হোসেন উত্তোলন করেন। এর পরেও টাকা আতœসাত করার অভিযোগ তুলে মসজিদ কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব মোস্তাাফিজুর রহমান ইউএনও ও থানা বরাবরে লিখিত অভিযোগ দিয়ে আমাদের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করাসহ হয়রানী করছেন। সময়মত মসজিদের সংস্কার কাজ না করায় এক পর্যায়ে নোটিশ দিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার (পিআইও) প্রতিনিধির উপস্থিতিতে প্রথম কিস্তির টাকা মসজিদের ইমামের মাধ্যমে ফেরত নেওয়া হয়। পরে ওই টাকা সরকারের রাজস্ব খাতে জমা দেন পিআইও। মসজিদের উন্নয়ন কাজ শুধুমাত্র কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব মোস্তাাফিজুর রহমানের খামখেয়ালিপনার কারণে ব্যাহত হয়। এতে মসজিদটি সংস্কার কাজ থেকে বঞ্চিত হয়। এছাড়াও আসন্ন ইউপি নির্বাচনের আমাদের নামে যাতে দুর্ণাম রটানো যায় সেই কারণে মসজিদ কমিটির সভাপতি মোস্তাফিজার রহমান উদ্দেশ্য প্রনোদিত হয়ে আমাদের বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্র শুরু করেছেন। প্রথম কিস্তির টাকা উত্তোলনের পর ইমাম খয়রাত হোসেন কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব মোস্তাাফিজুর রহমানের কাছে গিয়ে সংস্কার করার অনুরোধ করেন। কিন্তু তিনি তা না করে প্রকল্পের পুরো টাকা তার কাছে জমা করার নির্দেশ দেন। তাকে ওই টাকা না দেওয়ায় তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে তিনি উল্টো আমাদের দোষারোপ করেন। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, মসজিদের মুসল্লী জাহিদুল ইসলাম, ইলিয়াস আলী, জসিম উদ্দিন, আজকার আলীসহ অন্তত ৩০ জন।

বাংলার কথা/আশরাফুজ্জামান বাবু/১৪ সেপ্টেম্বর/২০২১

এই রকম আরও খবর

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn