আজ- শনিবার, ৬ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২১শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২২শে রজব, ১৪৪২ হিজরি
বাংলার কথা
Header Banner

বাঘায় ইসলামী মহাসম্মেলনের পোস্টারে বিতর্কিত ব্যক্তির নাম

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp

নিজস্ব প্রতিবেদক,বাঘা (রাজশাহী) o

রাজশাহীর বাঘার হেদাতী পাড়া দারুল হুদা ইসলামী মাদ্রাসায় আগামী ২০ তারিখে অনুষ্ঠিত হবে ইসলামী মহাসম্মেলন। এই সম্মেলনকে ঘিরে ইতোমধ্যে পোস্টার সেঁটে দেয়া হয়েছে দেয়ালে-দেয়ালে। আর সেই পোস্টারে বক্তার নামের তালিকায় রয়েছেন সরকারি ভাবে নিষিদ্ধ এক বিতর্কিত ব্যক্তির নাম। তিনি হলেন ড. মুজাফফর বিন মুহসিন।

 

অনুসন্ধানে জানা গেছে, সাম্প্রদায়িক উসকানী প্রদানকারী উগ্রবাদী বক্তাদের নামে সরকারি ভাবে একটি নিষিদ্ধ তালিকা সম্পন্ন হয়েছে। এই তালিকায় ১৭ জনের মধ্যে ১২ নম্বর সিরিয়ালে রয়েছেন ড. মুজাফফর বিন মুহসিন। তিনি মওলানা নুরুল ইসলাম হত্যা মামলার আসামী। এ মামলায় দীর্ঘ সময় কারাগারে থেকে এই মুহূর্তে জামিনে রয়েছেন। বর্তমানে বাঘা উপজেলার হেদাতিপাড়া বাউসা গ্রামে নিজ অর্থায়নে তিনি প্রতিষ্ঠা করেছেন দারুল হুদা ইসলামী কমপ্লেক্স।

 

স্থানীয় লোকজন জানান, আগামী ২০ ফেব্রুয়ারি ঐ প্রতিষ্ঠানে বাউসা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদুল ইসলামকে সভাপতি এবং স্থানীয় সাংসদ ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমকে প্রধান অতিথি করে একটি মহাসম্মেলনের ডাক দেয়া হয়েছে। এ জন্য তৈরী করা হয়েছে পোস্টার । আর সেই পোস্টারে বক্তা হিসাবে বিতর্কিত ব্যক্তি ড. মুজাফফর বিন মুহসিনের নাম উল্লেখ রয়েছে। আর এ নিয়ে এলাকায় শুরু হয়েছে বিতর্কের ঝড়।

 

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ড. মুজাফফর বিন মুহসিন বলেন, ‘আমি হত্যা মামলার আসামী হয়ে হাজত নিবাস করেছি সত্য। তবে সরকারি ভাবে নিষিদ্ধ ইসলামী বক্তাদের তালিকায় আমার নাম অর্ন্তভুক্ত হয়েছে-কি-না সেটি আমার জানা নেই। আমি দু’দিন আগেও নাটোরে জলসা করে এসেছি।’

 

এদিকে স্থানীয় সাংসদ ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের এপিএস সিরাজুল ইসলাম বলেন,‘ মন্ত্রীর নির্বাচনী এলাকা (চারঘাট-বাঘায়) কোন সভা-সিমিনার,খেলাধুলা,জলসা ইত্যাদি অনুষ্ঠিত হলে প্রধান অতিথি হিসাবে স্যারের নাম প্রকাশ করা হয়ে থাকে। এ জন্য কেউ-কেউ অনুমতি নেন। আবার অনেকেই অনুমতি না-নিয়ে নাম প্রচার করে থাকেন। তবে বাউসায় ইসলামী মহাসম্মেলনের বিষয়ে কোন অনুমতি দেয়া হয়নি।’ এদিক থেকে বাউসা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহিদ হাসান তার নাম লেখার বিষয়ে অবগত আছেন বলে উল্লেখ করেন।

 

বাঘা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) নজরুল ইসলাম জানান,‘ কোন এলাকায় সভা-সেমিনার করতে হলে(ডি.এম) মহামান্য আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট কর্তৃক অনুমতি নিতে হয়। এ মর্মে আমার কাছে কোন চিঠি আসেনি। ড. মুজাফফর বিন মুহসিন যদি ওই সম্মেলনে বক্তব্য প্রদান করেন তাহলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

 

বাংলার কথা/নুরুজ্জামান/ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০২১

এই রকম আরও খবর

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn