বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা শিক্ষা আইন ২০২১ ভেটিং এর জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে সভা

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp
নিজস্ব প্রতিবেক :
২২ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখ বুধবার বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা শিক্ষা আইন ২০২১ এর ভেটিং/ত্রুটি-বিচ্যুতি সংশোধনের জন্য আইন মন্ত্রণালয় এর পূর্ব নির্ধারিত সভা “আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়” এর সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত সভায় সভাপতিত্ব করেন আইন মন্ত্রণালয় এর আইন সচিব। সভায় উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এর বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথি বোর্ড এর চেয়ারম্যান ডা. দিলীপ কুমার রায়, বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথি বোর্ডের রেজিস্ট্রার ডা. জাহাঙ্গীর আলম, ডিএইচএমএস ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ও বোর্ড সদস্য ডা. শেখ মো. ইফতেখার উদ্দিন, গ্রাজুয়েট অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব ও বোর্ড সদস্য ডা. আশিস শঙ্কর নিয়োগী এবং বাংলাদেশ হোমিপ্যাথিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি ডা. কামরুজ্জামান ভূঁইয়া। সভায় বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা শিক্ষা আইন ২০২১ এর ত্রুটি-বিচ্যুতি সংশোধনের জন্য বিস্তারিত আলোচনা করেন।
উল্লেখ্য স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় হতে মন্ত্রিপরিষদে অনুমোদনের জন্য প্রেরিত বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা শিক্ষা আইন ২০২১ (প্রস্তাবিত) উল্লেখ আছে আইন অনুযায়ী সরকার স্বীকৃত দেশের হোমিওপ্যাথিক মেডিক্যাল কলেজ হতে সরকার স্বীকৃত শুধুমাত্র ২টি হোমিওপ্যাথি কোর্স ডিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) ও বিএইচএমএস (হোমিওপ্যাথি) কোর্সে পাসকৃত হয়ে সরকার কর্তৃক চিকিৎসক রেজিস্ট্রেশন সনদপত্র প্রাপ্ত হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসকগণ আইনগতভাবে ডা. (ডাক্তার) পদবী ব্যবহার করবেন। ৩১ মে ২০২১ সোমবার সকালে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে মন্ত্রিসভার বৈঠক বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা শিক্ষা আইন ২০২১ খসড়া মন্ত্রিসভায় নীতিগত অনুমোদন পায়। বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা শিক্ষা আইন ২০২১ খসড়া টি মন্ত্রিপরিষদ হতে ভেটিং (ইংরেজি ভেটিং এর বাংলা অর্থ পরীক্ষার মাধ্যমে। অর্থাৎ কোন বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করাকে সাধারণত ভেটিং বলে) এর জন্য আইন মন্ত্রণালয় হয়ে পূর্ণরায় মন্ত্রী পরিষদ হতে চূড়ান্ত অনুমোদন নিয়ে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদে প্রেরণ ও উল্থাপন এবং পাস করে তারপর গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি স্বাক্ষর করে সরকারি গেজেট প্রকাশ হলে কার্যকর হবে।
বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা শিক্ষা আইন ২০২১ কার্যকর হলে তখন বাংলাদেশে সরকার স্বীকৃত হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা শিক্ষা সহ হোমিওপ্যাথি বিষয়ক সরকারি সকল কার্যক্রম পরিচালিত হওয়া সরকারি হোমিওপ্যাথি আইন Bangladesh Homoeopathic Practitioner’s Ordinance, 1983 (Ordi.No.XLI of 1983) [যা ২০১৩ খ্রিস্টাব্দে Bangladesh Homoeopathic Practitioner’s Ordinance, 1983 পূর্ণরায় কার্যকর করতে বাংলাদেশ জাতীয় সংসদে পাস হয় “১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ হইতে ১৯৮৬ সালের ১১ নভেম্বর তারিখ পর্যন্ত সময়ের মধ্যে জারীকৃত কতিপয় অধ্যাদেশ কার্যকর করণ (বিশেষ বিধান) আইন,২০১৩” (২০১৩ সনের ৭ নং আইন )] তা রহিতকরণ হবে। (তথ্যসূত্র)।
বাংলার কথা/২৩ সেপ্টেম্বর/২০২১

এই রকম আরও খবর

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn