শুক্রবার , ১৪ অক্টোবর ২০২২ | ১৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯
  1. অর্থনীতি
  2. আন্তর্জাতিক
  3. খুলনা বিভাগ
  4. খেলাধুলা
  5. চট্টগ্রাম বিভাগ
  6. জাতীয়
  7. ঢাকা বিভাগ
  8. প্রচ্ছদ
  9. ফিচার
  10. বরিশাল বিভাগ
  11. বিনোদন
  12. মতামত
  13. ময়মনসিংহ বিভাগ
  14. রংপুর বিভাগ
  15. রাজনীতি

বরগুনার দুই উপজেলার পাঁচ গুরুত্বপূর্ণ পদে এক কর্মকর্তা

প্রতিবেদক
BanglarKotha-বাংলারকথা
অক্টোবর ১৪, ২০২২ ১২:৫৪ অপরাহ্ণ

নিউজ ডেস্ক :
বরগুনার আমতলী ও তালতলী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টেও বিচারক পদসহ পাঁচটি পদের গুরুত্বপূর্ণ পদেও দায়িত্ব পালন করছেন একজন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।

দীর্ঘদিন ধরে আমতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এবং তালতলী সহকারী কমিশনার (ভূমি) না থাকায় দাপ্তরিক কাজসহ দৈনন্দিন কাজে দেখা দিয়েছে ধীরগতি এবং মুখ থুবরে পরছে নির্বাহী আদালতের বিচারসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ কাজ।

জানা গেছে, গত ২ আগস্ট বরগুনার আমতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম আবদুল্লা বিন রশিদ পদোন্নতি পেয়ে বদলী হয়ে অন্যত্র চলে গেলে একই জেলার পার্শ্ববর্তী তালতলী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম সাদিক তানভির আমতলী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (অতিরিক্ত) হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। এর পূর্বে আমতলী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. নাজমুল ইসলাম ২০২২ সালের ৩০ জুন বদলী হলে এখন পর্যন্ত সহকারী কমিশনার (ভূমি) পদে কাউকে পদায়ন করা হয়নি। সে দায়িত্বও পালন করছেন তিনি।

অপর দিকে তালতলী উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) তাপস পাল ২০২১ সালের ২৯ নভেম্বরে অন্যত্র বদলী হয়ে যাওয়ার পর অদ্যবদি সেখানে আর কোনো সহকারী কমিশনার (ভূমি) পদায়ন করা হয়নি। সে দায়িত্বও পালন করছেন তিনি।

তালতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম সাদিক তানভির একাই একই সাথে আমতলীর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, সহকারী কমিশনার (ভূমি), আমতলী উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টের বিচারক ও তালতলী উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) এবং তালতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাসহ পাঁচটি গুরুত্বপূর্ণ পদেও দায়িত্ব পালন করছেন।

তালতলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম সাদিক তানভীর দুই উপজেলার পাঁচটি পদের দায়িত্ব পালনের কথা স্বীকার করে মুঠোফোনে বলেন, পাঁচটি পদের দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে কোনোটিই সঠিকভাবে পালন করা যায় না। তালতলী উপজেলা থেকে আমতলী উপজেলার দূরত্ব ৩৫ কিলোমিটার। তারপরও সড়ক পথে যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো নয়। আসা যাওয়াসহ দায়িত্ব পালন করা আমার জন্য অনেক কঠিন হয়ে পরেছে।

বরগুনার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ফয়সাল আহম্মেদ বলেন, আমতলী ও তালতলী উপজেলার শূন্য পদের বিষয়ে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। আশাকরি ওই সকল শূন্য পদে দ্রুত কর্মকর্তা পদায়ন করা হবে।

সর্বশেষ - প্রচ্ছদ