প্রাকৃতিক স্ক্রাব ব্যবহারে ত্বকে উজ্জ্বলতা না ফেরার কারণ

বাংলার কথা ডেস্ক ০

আমাদের ত্বকের কিছু কোষের মৃত্যু হয় প্রতিদিন — প্রকৃতির স্বাভাবিক নিয়মেই। এই যে আমরা মুখে জলের ঝাপটা দিই, গোসলের আগে তেল মালিশের পরামর্শ দেওয়া হয় – সব কিছুর উদ্দেশ্য একটাই মৃত কোষের স্তর সরিয়ে ত্বকের নিজস্ব উজ্জ্বলতা বের করে আনা। আগেকার দিনে গোসলের আগে দুধের সর-ময়দা, কমলালেবুর শুকনো খোসাবাটা দিয়ে রূপটান বানিয়ে গোটা গায়ে ঘষে ঘষে লাগাতেন — তারও উদ্দেশ্য ছিল মৃত কোষের পরত সরিয়ে ত্বকের স্বাভাবিক জেল্লা ফেরানো। এগুলির প্রত্যেকটিই কাজ করে স্ক্রাব হিসেবে।

মনে রাখবেন যে, ত্বকের নিজেকে পরিষ্কার করে নেওয়ার নিজস্ব পদ্ধতি আছে, খুব বেশি ঘষাঘষি ছাড়াও তার স্বাস্থ্য ভালো থাকবে। হ্যাঁ, নিয়মিত স্ক্রাব করলে ত্বকে রক্ত চলাচল ভালো হয়, উজ্জ্বলতা বাড়ে। কিন্তু মুখের ত্বক যেহেতু খুব কোমল, তাই স্ক্রাব বাছাইয়ের ব্যাপারেও সাবধানতা অবলম্বন করতে হবে। অনেকেই লবণ বা চিনি আর মধুর মিশ্রণ মুখে ঘষে নেন স্ক্রাব হিসেবে। সঙ্গে মেশান লেবুর রস। মনে রাখবেন, ত্বকের প্রকৃতি যা-ই হোক না কেন করকরে লবণ অথবা চিনিতে লাভের চেয়ে ক্ষতি বেশি হয়। ত্বক লাল হয়ে যেতে পারে, কিছু অংশে শুকনো প্যাচ তৈরির আশঙ্কাও থাকে। বিশেষ করে যাদের ত্বক স্পর্শকাতর, তাদের ত্বকে বেশি সমস্যা দেখা দেয়। তার চেয়ে দুধ-ময়দার রূপটান লাগান। কোমল এই প্যাক অনেক বেশি কাজে দেবে।

একান্তই যদি ঘরোয়া সমাধানের উপর ভরসা রাখতেই হয়, তা হলে খুব নরম, পুরোনো কাপড়ের টুকরো নিন। তার উপর কয়েক ফোঁটা এক্সট্রা ভার্জিন নারকেল বা অলিভ তেল ঢালুন। তার পর সেই কাপড়টা খুব আলতো করে গোটা মুখে চক্রাকারে ঘোরাতে থাকুন। সপ্তাহে দু’বার এমনটা করলেই ঝকঝকে সুন্দর ত্বক পাবেন।

চিনি বা লবণের স্ক্রাব কিন্তু গোটা শরীর পরিষ্কার করার ক্ষেত্রে দারুণ কাজে দেয়। তেল, মধু আর চিনি বা লবণ মিশিয়ে নিন। তার মধ্যে লেবুর রস আর পছন্দের কোনও এসেনশিয়াল অয়েল মেশাতে পারেন। তার পর গোসলের আগে এই মিশ্রণ গোটা শরীরে লাগিয়ে নিন। কনুই, হাঁটুর কাছে ভালো করে রগড়ে নেবেন। তা হলে কালো দাগ থাকবে না।

টিপ্‌স-

(ক) স্ক্রাব করার আগে মুখ ভালোভাবে পরিষ্কার করে নিন।

(খ) সপ্তাহে ১ বার অথবা ২ বার স্ক্রাব ব্যবহার করুন।

(গ) স্ক্রাব করার সময় ত্বক বেশি ঘষাঘষি করবেন না ।

(ঘ) স্ক্রাব করার পর ত্বক কিছুটা ফটোসেনসিটিভ হয়ে পড়ে। তাই বাইরে বের হবার আগে সানস্ক্রিন লাগিয়ে নিন।

(ঙ) প্রত্যেকবার স্ক্রাব করার পর পোর মিনিমাইজার ব্যবহার করবেন। এজন্য টোনার ব্যবহার করতে পারেন অথবা গোলাপজল তুলার বলে নিয়ে মুখে লাগাতে পারেন।

(চ) ব্রণযুক্ত ত্বকে স্ক্রাব ব্যবহার করবেন না।

সূত্র: ফেমিনা ও সাজগোজ।

বাংলার কথা/ সেপ্টেম্বর ১৩, ২০২০

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Follow by Email
%d bloggers like this: