আজ- সোমবার, ১লা মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৬ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ১৭ই রজব, ১৪৪২ হিজরি
বাংলার কথা
Header Banner

পুঠিয়া ও কাটাখালী পৌরসভায় ভোটগ্রহণ চলছে

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp

নিজস্ব প্রতিবেদক ০

রাজশাহীর পবা উপজেলার কাটাখালী ও পুঠিয়া উপজেলার পুঠিয়া পৌরসভায় ভোটহগ্রহণ শুরু হয়েছে। সকাল ৮টায় শুরু হওয়া ভোটগ্রহণ চলবে বিকাল চারটা পর্যন্ত। এই প্রথম এ দুটি পৌরসভার সবকটি কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট নেওয়া হচ্ছে।

পুঠিয়া ও কাটাখালী পৌরসভার নির্বাচনে খাতাকলমে মেয়দ পদে প্রার্থী রয়েছেন সাতজন। তবে এরই মধ্যে নৌকার পক্ষে কাজ করার সমর্থন জানিয়ে কাটাখালী পৌরসভায় নির্বাচনী ময়দান থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা আবু শামা।

পুঠিয়া পৌরসভায় মেয়র পদে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক নিয়ে রবিউল ইসলাম রবি, বিএনপির ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে আল মামুন এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নারিকেল গাছ প্রতীকে গোলাম আজম নয়ন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এছাড়া কাউন্সিলর পদে ৩৬ জন এবং মহিলা কাউন্সিলর পদে ৮ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। পৌর নির্বাচনে ৯টি কেন্দ্রে ১৬ হাজার ৬৩৩ জন তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।

 

অন্যদিকে, কাটাখালী পৌরসভায় মোট ভোটার ২২ হাজার ২৩৯ জন। ৯টি কেন্দ্রে চলবে ভোটগ্রহণ। সংরক্ষিত ১০ জন নারী প্রার্থী ছাড়াও ৩৯ জন সাধারণ কাউন্সিলর পদে লড়ছেন। মেয়র পদে এখানে খাতাকলমে পাঁচজন প্রার্থী থাকলেও ভোটের মাঠে আছেন তিনজন। নৌকার পক্ষে কাজ করার আহ্বান জানিয়ে আগেই সরে দাঁড়িয়েছেন স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা আবু শামা। আর বিএনপি প্রার্থী অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম স্বতন্ত্র প্রার্থী জামায়াতে ইসলামীর নেতা মাজিদুর রহমানের সাথে গোপন সমঝোতা করে নির্বাচনে প্রচারই শুরু করেননি বলে স্থানীয় একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে।

এদিকে, বেশ কয়েকদিনের টানা প্রচার ও জনসংযোগ শেষে প্রার্থীরা এখন তাদের জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী। গত শনিবার নির্বাচনের শেষদিনের প্রচারেসকাল থেকে রাত পর্যন্ত ব্যস্ত সময় পার করেছেন মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। নাওয়া-খাওয়া ভুলে গিয়েছেন ভোটারদের দুয়ারে দুয়ারে।

 

প্রতীক বরাদ্দের পর থেকেই লোকজনের মুখে মুখে ‘কে পাশ করবে, ‘কে এগিয়ে আছে’ এসব নিয়ে চলেছে হিসাব-নিকাশ। পৌরশহরের পথঘাট, অলিগলি, প্রধান সড়ক ছেয়ে গেছে পোস্টারে। সব মিলিয়ে নির্বাচনকে ঘিরে এই দুই পৌরসভায় এক উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। ভোটারদের চাওয়া, যিনিই আসুক তিনি রাজনৈতিক ভেদাভেদের উর্ধ্বে গিয়ে জনগণ ও এলাকার উন্নয়নে কাজ করবেন।

 

এই দুই পৌরসভায় নির্বাচনকে ঘিরে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী কিংবা সমর্থকদের মধ্যে এখন পর্যন্ত কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

পুঠিয়া পৌরসভার আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী রবিউল ইসলাম রবি বলেন, দলীয় নেতাকর্মীরা একসঙ্গে নির্বাচনের কাজ করেছি। অন্য যারা প্রার্থিতা করছেন তাদের চেয়ে বেশি জনগণের সমর্থন রয়েছে আমাদের। আশা করছি জনগণ বিপুল ভোটে আমাকে নির্বাচিত করবে।

 

আর বিএনপি’র প্রার্থী আল মামুন বলেন, আশা করছি জনগণের রায় আমাদের দিকেই আসবে।

ভোটকেন্দ্রে স্বাভাবিক পরিস্থিতি বজায় রাখতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে বলে জানান পুঠিয়া উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জয়নুল আবেদীন এবং পবা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম প্রামাণিক। তারা জানান, ভোটকেন্দ্রে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় অতিরিক্ত পুলিশ, র‌্যাব, আনসার ভিডিপির সদস্য ছাড়াও গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা মোতায়েন থাকবে। এ ছাড়াও সার্বক্ষণিক ম্যাজিস্ট্রেট, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করবেন।

রাজশাহী মহানগর পুলিশের মুখপাত্র অতিরিক্ত উপ-কমিশনার গোলাম রুহুল কুদ্দুস এবং জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) ইফতে খায়ের আলম জানান, ভোটগ্রহণের জন্য প্রতিটি কেন্দ্রে পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হয়েছে।

 

ছবি : মাহফুজুর রহমান রুবেল

 

বাংলার কথা/ডিসেম্বর ২৮, ২০২০

এই রকম আরও খবর

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn