পাটগ্রামে চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থীটি মা হলেন


পাটগ্রাম প্রতিনিধি o
লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার বুড়িমারী ইউনিয়নের চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী (১২) অবশেষে পুত্র সন্তানের মা হয়েছেন। স্বাভাবিকভাবে সন্তান প্রসবে ঝুঁকি থাকায় রংপুরের বেসরকারি রোজ ক্লিনিকে গত সোমবার (৫ অক্টোবর) অস্ত্রপাচারের (সিজারিয়ান সেকশন) মাধ্যমে একটি পুত্র সন্তান জন্ম দেন।

ধর্ষণের শিকার হয়ে ওই চতুর্থ শ্রেণির শিশুটি আরেকটি শিশুর জন্ম দেওয়ায় এলাকা জুড়ে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। মেয়েটির পরিবার অতি দরিদ্র হওয়ায় বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সাঈদ নেওয়াজ নিশাত ওই প্রসূতি মায়ের যাবতীয় ব্যয় বহন করেন।

জানা গেছে, একই ইউনিয়নের তহিদুল ইসলামের ছেলে ওয়াজেদ আলী (৩২) চতুর্থ শ্রেণির ওই শিশুটিকে একাধিকবার ফুঁসলিয়ে ধর্ষণ করে। এ ঘটনায় ধর্ষণের অভিযোগ এনে শিশুটির (ছাত্রী) বাবা পাটগ্রাম থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে গত ২৬ জুলাই ওয়াজেদ আলীকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার পর থেকে আসামি পলাতক রয়েছে।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, বুড়িমারী ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের ইসলামপুর আদর্শগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রীর (১২) দিনমজুর বাবা-মা পাথর ভাঙ্গার মেশিনে প্রতিদিন কাজে যান। বাড়িতে অন্য কেউ না থাকার সুবাদে প্রতিবেশী দুই সন্তানের জনক ওয়াজেদ আলী দীর্ঘদিন ধরে ফুসলিয়ে ও বিভিন্ন ভয়-ভীতি দেখিয়ে শিশু মেয়েটিকে একাধিকবার ধর্ষণ করে। এতে মেয়েটি অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে।

পাটগ্রাম থানার ওসি সুমন কুমার মহন্ত জানান, ‘ধর্ষিতা মেয়েটি মা হয়েছেন জেনেছি। আসামি ওয়াজেদ আলীকে গ্রেপ্তারের সর্বোচ্চ চেষ্টা চলছে।’

বাংলার কথা/আজিনুর রহমান আজিম/অক্টোবর ১১, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Follow by Email
%d bloggers like this: