আজ- রবিবার, ৭ই মার্চ, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ, ২৩শে রজব, ১৪৪২ হিজরি
বাংলার কথা
Header Banner

পাখিদের তাড়াতে ছেঁটে ফেলা হলো ডালপালা

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp

নিজস্ব প্রতিবেদক o

গত কয়েক বছর ধরে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল চত্বরের কড়ই গাছগুলোতে নির্ভয় আবাস ছিল শামুকখোঁল, পানকৌড়িসহ নিশি বকের। সেই আবাসেই এবার করাত চালালেন রামেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। পাখিদের তাড়াতে হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনের কয়েকটি বড় কড়ই গাছের ডালপালা ছেঁটে দেন হাসপাতালের কয়েকজন কর্মী।

তাদের অভিযোগ, কোনো একটি পাখি কড়ই বৃক্ষের নিচে দাঁড়িয়ে থাকা একজন কর্মকর্তার গায়ে বিষ্ঠা ফেলে।

অভিযোগ পেয়েই সোমবার (২৮ ডিসেম্বর) সকালের দিকে রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী কড়ই গাছগুলোর ডালপালা ছেঁটে দিতে নির্দেশ দেন। নির্দেশ পেয়েই কর্মিরা গাছের ডালপালা ছাঁটতে শুরু করেন। তবে পাখিপ্রেমী মানুষদের তাৎক্ষণিক প্রতিবাদে কিছু ডালপালা আপাতত রক্ষা পেয়েছে।রা

মেক হাসপাতালের একজন সহকারী পরিচালক বলেন, গাছে আশ্রিত পাখিদের বিষ্ঠা পড়ছে সেবা দিতে ও নিতে আসা লোকজনের গায়ে। এছাড়া হাসপাতালের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার সমস্যা হওয়ায়গাছগুলো কাটতে বলেন পরিচালক।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, কড়ই বৃক্ষের ডালপালা ছাঁটশুরু হলে পাখিপ্রেমী মানুষ ও গণমাধ্যম কর্মীরা ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে বাধা দেন। পাখিপ্রেমীদের হাসপাতাল চত্বর থেকে বের করে দেয়ার চেষ্টা করেন হাসপাতালের নিরাপত্তা কর্মীরা। এ নিয়ে বাগবিতণ্ডাও হয়। ধারণ মানুষও প্রতিবাদ করেন।

অবস্থা বেগতিক দেখে গাছগুলোর সব ডালপালা না কেটেই ফিরে যান হাসপাতালের কর্মীরা।

রামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী বলেন, হাসপাতাল এলাকা কখনো পাখির অভয়ারণ্য হতে পারে না। এটি হাসপাতালের কনসেপ্টের সঙ্গে যায় না। পাখির বিষ্ঠায় হাসপাতালের পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতায় সমস্যা হচ্ছে। এ কারণেই জরুরি বিভাগ ও শৌচাগারের সামনের দুটি গাছের ডালপালা কাটার পরিকল্পনাছিল তাদের।

এদিকে, পাখিপ্রেমীরা বলছেন, দীর্ঘদিন ধরেই রামেক কলেজ ক্যাম্পাস, রামেক হাসপাতাল এলাকা ইন্সটিটিউট অব নিউক্লিয়ার মেডিসিন অ্যান্ড অ্যালাইড সায়েন্সের সামনের এলাকার গাছগুলোতে বিভিন্ন জাতের পাখ পাখালির বাস। পাশের সড়ক বিভাজকেরও গাছগুলোতেও বাসা বেঁধেছে পাখিরা।

বাংলার কথা/সাইদ সাজু/ডিসেম্বর ২৯, ২০২০

এই রকম আরও খবর

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn