রাজশাহী জেলা আ’লীগের জাতীয় শোক দিবস পালন

নিজস্ব প্রতিবেদক o
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদাত বার্ষিকী পালন উপলক্ষে নানান কর্মসূচি পালন করেছে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগ। আজ শনিবার (১৫ আগষ্ট) এসব কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

কর্মসূচির মধ্যে ছিল সকালে সূর্য উদয় ক্ষণে দলীয় কার্যালয়ে পতাকা অর্ধনমিতকরণ ও কালো পতাকা উত্তোলন, সকাল সাড়ে ১০টায় রাজশাহী কলেজে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিত্বে ফুলেল শ্রদ্ধা নিবেদন, সাড়ে ১১টায় অলোকার মোড়ে দলীয় কার্যালয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আলোচনা সভা ও অসহায় দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ। পরে বাদ জোহর জেলার সকল মসজিদে দোয়া-মিলাদ, মন্দির, প্যাগাডো ও র্গীর্জায় বিশেষ প্রার্থনা করা হয়েছে।

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক এমপি মেরাজ উদ্দিন মোল্লার সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক এমপি আব্দুল ওয়াদুদ দারার পরিচালনায় বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে স্মৃতিচারণমূলক বক্তব্য রাখেন রাজশাহী জেলা আাওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বাঘা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট লায়েব উদ্দিন লাভলু, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক উপদেষ্টা মনিরুল ইসলাম তাজুল, দুর্গাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নজরুল ইসলাম, পুঠিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ডা. হাসমত উদ দৌলা, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক প্রভাষক আসাদুজ্জামান আসাদ, সাবেক মহিলা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট পূর্ণিমা ভট্টাচার্য, আওয়ামী লীগ নেতা আমানুল হক দুদু, অ্যাডভোকেট শরিফুল ইসলাম, বাগমারা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ অ্যাডভোকেট জাকিরুল ইসলাম সান্টু, ডা. চিন্ময় কুমার দাস, বানেশ্বর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আব্দুস সামাদ মোল্লাহ, রাজশাহী জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম মুক্তি, প্রদ্যুৎ কুমার সরকার, মাওলানা এন্তাজ আলী, জেলা কৃষক লীগের সভাপতি রবিউল আলম বাবু, সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ তাজবুল হক, জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মর্জিনা পারভীন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি রোকনুজ্জামান রিন্টু, সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান রানা, জেলা যুব মহিলা লীগের সভাপতি নার্গিস শেলী, সাধারণ সম্পাদক বিপাশা খাতুন, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও পাকুড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মেরাজুল ইসলাম মেরাজ, প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলার অসহায় মেহনতী মানুষের পক্ষে অবস্থান নিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধু শোষণ বঞ্চিত ও নিপীড়িত মানুষের নেতা ছিলেন। বাংলাদেশ বলতে বঙ্গবন্ধুকে বাদ দেয়া যাবে না। বাংলাদেশকে বিশ্বাস করলে হলে বঙ্গবন্ধুকে বিশ্বাস করতে হবে। আমরা যে দলই করি না কেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে মেনে নিয়ে পথ চলতে হবে।

বাংলার কথা/পিআর/আগষ্ট ১৫, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Follow by Email
%d bloggers like this: