নাটোরে এলজিইডির বাজেয়াপ্ত টেন্ডার সিকিউরিটির কোটি টাকা নয়ছয়


নিজস্ব প্রতিবেদক, নাটোর ০
নাটোরের এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলীর শহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে প্রায় ৫০ কোটি টাকার দু’টি সড়ক উন্নয়ন কাজের বাজেয়াপ্ত হওয়া টেন্ডার সিকিউরিটির কোটি টাকা নয়ছয় করার অভিযোগ উঠেছে। একই সাথে আদালতে দায়ের করা মামলার জবাব না দিয়ে এক ঠিকাদারকে বাতিল হওয়া কাজ পাইয়ে দিতে তিনি কৌশলে সহায়তা করেছেন বলেও অভিযোগ করেছেন কয়েকজন ঠিকাদার। অবশ্য প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম তার বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগ আমলে না নিয়ে সংশ্লিষ্ট বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী সহ কর্তৃপক্ষকে অবগতি করে তাদের নির্দেশনানুযায়ী পদক্ষেপ নিয়েছেন বলে দাবি করেছেন।

বর্তমানে অবৈধ সুবিধা নিতে আদালতের নির্দেশনাকে পুঁজি করে বাতিল হওয়া ওই দু’টি সড়ক উন্নয়ন কাজ নতুন করে বরাদ্দ দিয়ে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদারের সাথে বৃহস্পতিবার চুক্তি করেছেন নির্বাহী প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম। এছাড়া দপ্তরের বিভিন্ন টেন্ডারে প্রকৌশলী তার পছন্দের ঠিকাদারের নামে কাজ পাইয়ে দিতে ছলচাতুরির আশ্রয় নিয়ে থাকেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। ইতোমধ্যে ৩০ কোটি টাকার একটি ব্রীজ নির্মাণ কাজ তার পছন্দের ঠিকাদারকে পাইয়ে দিতে গিয়ে তার ছলচাতুরি ধরা পড়ায় বিপাকে পড়েছেন তিনি।

অনুসন্ধানে জানা যায়, রাজাপুর থেকে জোনাইল পর্যন্ত প্রায় ১৮ কিলোমিটার ও চংধুপইল থেকে আব্দুলপুর প্রায় ২০ কিলোমিটার দুটি সড়কের উন্নয়ন কাজের ব্যয় ধরা হয় ৫০ কোটি টাকা। যা ইজিপির লিমিটেড স্ট্যান্ডার্ড ম্যাথর্ড (এলটিএম) বিধি অনুযায়ী টেন্ডার আহবান করা হয়। এতে শহীদ ব্রাদার্স নামে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কাজটি পায়।

শর্ত অনুযায়ী দরপত্র খোলার ১২ কার্যদিবসের মধ্যে প্রফেসনাল গ্যারান্টি মানি জমা দিতে ব্যর্থ হয় শহীদ ব্রাদার্স নামের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি। একারণে ওই ঠিকাদারের জমাকৃত প্রায় কোটি টাকার টেন্ডার সিকিউরিটি বাজেয়াপ্তসহ টেন্ডার কার্যাদেশ বাতিল করা হয়।

পরবর্তিতে ঠিকাদার শহীদ ব্রাদার্স এলজিইডির এই আদেশের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জবাব চেয়ে একটি উকিল নোটিশ পাঠায়। কিন্তু নাটোর এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম সেই উকিল নোটিশের জবাব না দিয়ে কৌশলে শহীদ ব্রাদার্স নামের এক ঠিকাদারের পক্ষে অবস্থান নেন। এমন অভিযোগ করেন টেন্ডারে অংশ নেওয়া অন্য ঠিকাদাররা।

পরবর্তিতে ওই ঠিকাদার আদালতে মামলা দায়ের করেন। এব্যাপারে নাটোর এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম কোন পদক্ষেপ না নিয়ে নিরব ভূমিকা পালন করেন। ফলে প্রতিপক্ষ না থাকায় আদালত ঠিকাদার শহীদ ব্রাদার্সের পক্ষে রায় প্রদান করেন।

ওই টেন্ডারে অংশ নেওয়া দ্বিতীয় নিম্ন দরদাতা মেসার্স মীর হাবিবুল আলম ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধিকারী অভিযোগ করে বলেন, এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম আদালতে দায়ের করা মামলায় অংশ না নিয়ে মূলত শহীদ ব্রাদার্সকে কাজটি পুনরায় পাইয়ে দেওয়ার জন্য কৌশলের অবস্থান নেন। তিনি অভিযোগ করে বলেন, মেসার্স শহীদ ব্রাদার্সের নামে বরাদ্দ দুটি সড়কের কাজের কার্যাদেশ বাতিল করে বাজেয়াপ্ত করা টেন্ডার সিকিউরিটি ৯৬ লাখ টাকা নির্বাহী প্রকৌশলীর ব্যাংক হিসাব নম্বরে জমা করা হয় এবং দ্বিতীয় নিম্ন দরদাতা হিসেবে মেসার্স মীর হাবিবুল আলম ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের পক্ষে মতামত দিয়ে প্রধান প্রকৌশলীসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ বরাবর পত্র পাঠানো হয়।

বর্তমানে নির্বাহী প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম আদালতের নির্দেশনাকে পুঁজি করে বাতিল হওয়া দুটি সড়ক উন্নয়ন কাজ মেসার্স শহিদ ব্রাদার্সকে পাইয়ে দিতে ইজিপি পদ্ধতির পরিবর্তে ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে তার সাথে নতুন করে চুক্তি এবং টেন্ডার সিকিউরিটি মানি ও প্রফেসনাল ব্যাংক গ্যারান্টি গ্রহণ করেন। ঠিকাদার আরও অভিযোগ করেন, ‘সম্প্রতি সিংড়া উপজেলার মহেশচন্দ্রপুর এলাকায় প্রায় ৩০ কোটি টাকার একটি ব্রীজ নির্মাণ কাজ প্রকৌশলী তার পছন্দের ঠিকাদার সুরমা জিন্নাহ জেভিকে পাইয়ে দিতে ছলচাতুরির আশ্রয় নেন। তিনি ওই টেন্ডারে অংশ নেওয়া অন্যান্য ঠিকাদারদের উচ্চ দর প্রদান করতে প্রলুব্ধ করেন। প্রকৌশলীর ছলচাতুরির বিষয়টি বুঝতে পেরে আমি টেন্ডারে নিম্ন দর প্রদান করি। কিন্তু দরপত্র খোলার পর প্রকৌশলীর পছন্দের ঠিকাদার সুরমা জিন্নাহ জেভিও নিম্ন দর প্রদান করেছেন। আমার ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সর্ব নিম্ন দরদাতা হওয়া সত্বেও প্রকৌশলীর পছন্দের ঠিকাদারকে কাজ পাইয়ে দিতে আমার প্রতিষ্ঠানকে নানা অজুহাতে কাগজ-পত্র দাখিলের কথা বলে হয়রানি করা হচ্ছে।’

এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী শহিদুল ইসলাম উকিল নোটিশ ও মামলা দায়েরের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, সকল বিষয় প্রধান প্রকৌশলীসহ সংশ্লিষ্ট সকল কর্মকর্তাকে বিষয়গুলো অবগত করা আছে। তাদের নির্দেশ মত কাজ করেছি। টেন্ডার সিকিউরিটির ৯৬ লাখ টাকা নতুন করে কনট্রাক্ট সাইন করার সময় ঐ ঠিকাদারকে ফেরত দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। তবে উকিল নোটিশ ও মামলায় অংশগ্রহণ করেননি কেন, এমন প্রশ্নের সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি।

বাংলার কথা/নাজমুল হাসান/অক্টোবর ১৬, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Follow by Email
%d bloggers like this: