দেশে ধর্ষণ বাড়ায় বিচার দাবিতে রাজশাহীতে মানববন্ধন


নিজস্ব প্রতিবেদক ০
দেশে ধর্ষণের ঘটনা বেড়ে যাওয়ায় উদ্বেগ জানিয়ে এসব ঘটনার জড়িতদের গ্রেফতার করে বিচারের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে রাজশাহীতে বিএনপি এবং আদিবাসী ছাত্র পরিষদ পৃথক মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে।

রাজশাহীর তানোর উপজেলা মুন্ডুমালায় গির্জায় আদিবাসী এক কিশোরীকে তিনদিন আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ফাদার প্রদীপ গ্রেগরীর শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন করেছে আদিবাসী ছাত্র পরিষদ।

বৃহস্পতিবার (১ অক্টোবর) সকালে নগরীর সাহেববাজার এলাকায় আয়োজিত এই মানববন্ধনে বক্তারা ফাদার প্রদীপ গ্রেগরীর সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি জানান। একই সাথে ধর্ষণের ঘটনা সালিশে মিমাংসার চেষ্টা করায় তানোরের মুন্ডুমালা উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কমেল মার্ডিকেও শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানান। বক্তারা ভুক্তভোগী কিশোরী এবং তার পরিবারের নিরাপত্তারও দাবি জানান।

মানববন্ধনে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা প্রশান্ত কুমার সাহা, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. আমিরুল ইসলাম কনক, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির জেলা সভাপতি শাজাহান আলী বরজাহান, সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্টের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কমিটির আহবায়ক রিদম শাহরিয়ার ও ছাত্রনেতা তামিম সিরাজী।

আদিবাসী ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি নকুল পাহানের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে আরো বক্তব্য রাখেন জাতীয় আদিবাসী পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাধারণ সম্পাদক গনেশ মার্ডি, সাংগঠনিক সম্পাদক বিমল চন্দ্র রাজোয়াড়, দপ্তর সম্পাদক সুভাষ চন্দ্র হেমব্রম, জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুসেন কুমার শ্যামদুয়ার, গোদাগাড়ী উপজেলা কমিটির সভাপতি রবীন্দ্রনাথ হেমব্রম, কেন্দ্রীয় সদস্য বিভূতী ভূষণ মাহাতো, আদিবাসী যুব পরিষদের জেলা সভাপতি উপেন রবিদাস, আদিবাসী ছাত্র পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক তরুন মুন্ডা, রাজশাহী কলেজ কমিটির সভাপতি সাবিত্রী হেমব্রম, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় কমিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক উত্তম কুমার মাহাতো এবং ছাত্রনেতা দিলিপ পাহান।

বক্তারা বলেন, গত ২৬ থেকে ২৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তানোরের মুন্ডুমালা এলাকার সাধুজন মেরূী ভিয়ান্নী গির্জায় সপ্তম শ্রেনির এক আদিবাসী কিশোরীকে আটকে রেখে ধর্ষণ করা হয়। ঘটনা জানাজানি হলে গ্রাম্য সালিশে ফাদারকে দুই হাজার টাকা জরিমানা করে পালিয়ে যাওয়ার সুযোগ করে দেয়া হয়। এ নিয়ে থানায় মামলা হলে র‌্যাব অভিযুক্ত ফাদারকে রাজশাহী মহানগরীর একটি বিশপ হাউজ থেকে গ্রেফতার করে।

এদিকে, সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের দ্বারা স্বামীকে আটকে রেখে স্ত্রীকে গণধর্ষন এবং খাগড়াছড়িতে মানসিক ভারসাম্যহীন আদিবাসী নারীকে গণধর্ষনের সাথে জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টা থেকে ঘন্টাকালব্যাপি মানববন্ধন করেছে রাজশাহী মহানগর নারী ও শিশু অধিকার ফোরাম। নগরীর সাহেববাজার জিরো পয়েন্টে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

রাজশাহী নারী ও শিশু অধিকার ফোরামের আহবায়ক অধ্যাপক ড. আখতার হোসেনের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে প্রধান অতিথি ছিলেন মহানগর বিএনপি’র সভাপতি মোসাদ্দেক হোসন বুলবুল। বিশেষ অতিথি ছিলেন মহানগর বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওয়ালিউল হক রানা, জেলা যুবদলের সভাপতি মোজাদ্দেদ জামানী সুমন, মহানগর যুবদলের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ সুইট, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি জাকির হোসেন রিমন ও সাধারণ সম্পাদক আবেদুর রেজা রিপন।

মহানগর মহিলা দলের যুগ্ম আহবায়ক অ্যাডভোকেট রওশন আরা পপি, অধ্যাপিকা সখিনা খাতুন, গুলশান আরা মমতা, রোজি, নারী নেত্রী রিতা, রোমেনা ও ডেইজী, মহানগর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রবি, মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি আসাদুজ্জামান জনি, সিনিয়র সহ-সভাপতি মুর্তুজা ফামিন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আকবর আলী জ্যাকি, জেলা ছাত্রদলের সহ-সভাপতি রবিউল ইসলাম কুসুমসহ বিএনপি, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীরা মানববন্ধনে অংশ নেন।

এসময় মহানগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক শফিকুল হক মিলন বলেন, এই সরকারের আমলে কোন নারী, মেয়ে ও কন্যা শিশু নিরাপদ নয়। ছয় মাস থেকে বৃদ্ধ নারী পর্যন্ত ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের ছোবল থেকে রক্ষা পাচ্ছে না। আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোহিগ সংগঠনের নেতকার্মীরা একের পর ধর্ষন করেই যাচ্ছে। কেউ আবার এই কাজে সেঞ্চুরী করে তা উদযাপন করছে। তিনি বলেন, ২০১৫ সাল থেকে এ পর্যন্ত ৩ হাজার ১৩৬ জন নারী ও শিশু ধর্ষনের শিকার হয়েছে। আর ২০১৯ সাল পর্যন্ত বিচার হয়েছে মাত্র ১৬৪টি। ২০১৯ সালে শিশু ধর্ষিত হয়েছে ১ হাজার জন। গড়ে প্রতিদিনি ৩ জন করে শিশু ধর্ষনের শিকার হচ্ছে। এর মধ্যে ৪৭জন শিশুকে গণধর্ষনের পর হত্যা করা হয়েছে।

বক্তারা সিলেট এমসি কলেজের ঘটনাসহ সকল ধর্ষণের সুষ্ঠু বিচার চান এবং ধর্ষনকারীদের আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান।

বাংলার কথা/অক্টোবর ০১, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Follow by Email
%d bloggers like this: