বৃহস্পতিবার , ২০ অক্টোবর ২০২২ | ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯
  1. অর্থনীতি
  2. আন্তর্জাতিক
  3. খুলনা বিভাগ
  4. খেলাধুলা
  5. চট্টগ্রাম বিভাগ
  6. জাতীয়
  7. ঢাকা বিভাগ
  8. প্রচ্ছদ
  9. ফিচার
  10. বরিশাল বিভাগ
  11. বিনোদন
  12. মতামত
  13. ময়মনসিংহ বিভাগ
  14. রংপুর বিভাগ
  15. রাজনীতি

চিকিৎসকের অবহেলায় রাবি শিক্ষার্থী মৃত্যু, রামেক হাসপাতাল ভাঙচুর

প্রতিবেদক
BanglarKotha-বাংলারকথা
অক্টোবর ২০, ২০২২ ৪:৫৫ পূর্বাহ্ণ

নিজস্ব প্রতিনিধি , রাজশাহী :

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ হবিবুর রহমান হলের চারতলার ছাদ থেকে পড়ে এক শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন। বুধবার রাত ৮টার দিকে ওই শিক্ষার্থী ছাদ থেকে পড়ে আহত হলে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
নিহত শিক্ষার্থীর নাম শাহরিয়ার (২৬)। তিনি মার্কেটিং বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী। শাহরিয়ার হবিবুর রহমান হলের ৩৫৪ নং রুমের আবাসিক শিক্ষার্থী।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র উপদেষ্ঠা অধ্যাপক তারেক নুর জানান, কিভাবে শাহরিয়ার ছাদ থেকে পড়েছে তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে তার মৃত্যু হয়েছে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, রাত ৮টার দিকে শাহরিয়ার ছাদ থেকে পড়ে গেলে সহপাঠিরা তাকে প্রথমে বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে নেয়। সেখান থেকে তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। হাসপাতালে ভর্তি করার পর তাকে ৮নং ওয়ার্ডে নেয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

পরে এ সময় চিকিৎসকের অবহেলার অভিযোগ তুলে রামেক হাসপাতালে তারা হাসপাতালের ৮ নং ওয়ার্ডের দুই চিকিৎসককে অবরুদ্ধ করে রাখে। এসময় ইন্টার্ন চিকিৎসকরা রাবি শিক্ষার্থীদের উপর হামলা চালায়, এঘনায় কয়েক জন ছাত্র আহত ছাত্র হয়।

শিক্ষার্থীরা জনান, রাবির হবিবুর রহমান হলের তৃতীয় তলা থেকে পড়ে গুরুতর আহত শাহরিয়ারকে রামেকে নিয়ে গেলে সেখানে যথাসময়ে চিকিৎসা না দেওয়ায় মৃত্যু হয় বলে অভিযোগ তুলে প্রতিবাদ জানায় সহপাঠীরা। পরে ইন্টার্ন চিকিৎসকরা রাবি শিক্ষার্থীদের উপর হামলা করলে কয়েকজন আহত ছাত্র হয়। এরই প্রতিবাদে ফুঁসে ওঠে রাবি শিক্ষার্থীরা। রাবি শিক্ষার্থীদের উপর হামলায় জড়িত চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে শাস্তিমুলক ব্যাবস্থা গ্রহণের দাবি জানাই।

রাজশাহী নগরের রাজপাড়া থানার ওসি জাহাঙ্গীর আলম জানান, চিকিৎসায় অবহেলার অভিযোগ তুলে শিক্ষার্থীরা হাসপাতালের গেটসহ ৮নং ওয়ার্ডে ভাঙচুর চলায়। এ সময় হাসপাতালের নিরাপত্তা কর্মীদের সঙ্গে তাদের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। পরে শিক্ষার্থীরা ৮নং ওয়ার্ডের দুইজন চিকিৎসককে অবরুদ্ধে করে রাখে। খবর পেয়ে অতিরিক্ত পুলিশ, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও রাজনৈতিক নেতা গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করে।

সর্বশেষ - প্রচ্ছদ