শনিবার , ১৯ নভেম্বর ২০২২ | ২৩শে মাঘ, ১৪২৯
  1. অর্থনীতি
  2. আন্তর্জাতিক
  3. খুলনা বিভাগ
  4. খেলাধুলা
  5. চট্টগ্রাম বিভাগ
  6. জাতীয়
  7. ঢাকা বিভাগ
  8. প্রচ্ছদ
  9. ফিচার
  10. বরিশাল বিভাগ
  11. বিনোদন
  12. মতামত
  13. ময়মনসিংহ বিভাগ
  14. রংপুর বিভাগ
  15. রাজনীতি

চারজন বিদেশিসহ ছয় হাজার বন্দিকে মুক্তি দিলো মিয়ানমার

প্রতিবেদক
BanglarKotha-বাংলারকথা
নভেম্বর ১৯, ২০২২ ৪:০৯ অপরাহ্ণ

নিউজ ডেস্ক :
চারজন বিদেশি বন্দিসহ ছয় হাজার বন্দিকে মুক্তি দিয়েছে মিয়ানমারের সেনা সরকার। বলা হয়েছে, তাদের সকলের দোষ ক্ষমা করা হয়েছে। চার বিদেশিসহ এই ছয় হাজার বন্দিই রাজনৈতিক কারণে আটক ছিলেন মিয়ানমারের জেলে।

মুক্তি পাওয়া বিদেশি বন্দিদের সবাই হাইপ্রোফাইল। একজন যুক্তরাজ্যের সাবেক রাষ্ট্রদূত। তাকে মুক্তি দিলেও তার স্বামী এখনো জেলে বন্দি। তবে মিয়ানমারের সরকার জানিয়েছে, রাষ্ট্রদূতের স্বামীকেও দ্রুত মুক্তি দেওয়া হবে। এছাড়া অং সান সুচির অর্থনৈতিক পরামর্শদাতা এক অস্ট্রেলিয়ান নাগরিককে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। মুক্তি পেয়েছেন জাপানের এক সাংবাদিক তথা চিত্র পরিচালক এবং যুক্তরাষ্ট্রের এক বোটানিস্ট বা উদ্ভিদ বিজ্ঞানী।

ছাড়া পাওয়ার পর সকলেই প্রথমে থাইল্যান্ডে এসে পৌঁছান। সেখান থেকে তারা নিজের নিজের দেশের পথে রওনা হন।

যুক্তরাজ্যের সাবেক রাষ্ট্রদূত ভিকি বোম্যান সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলতে চাননি। তার স্বামী এখনো জেলে বন্দি। তবে সেনা শাসক জানিয়েছে, দ্রুত তাকেও মুক্তি দেওয়া হবে। এই দুই যুক্তরাজ্যের নাগরিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, তারা মিয়ানমারে বাগি বদলালেও ঠিকানার রেজিস্ট্রেশনে ঠিকানা বদল করেননি। সেনা অভ্যুত্থানের কয়েকমাসের মধ্যেই তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। জেলে তার সঙ্গে কেমন ব্যবহার করা হয়েছে, এবিষয়ে একটি শব্দও উচ্চারণ করেননি বোম্যান।

সুচি গ্রেপ্তার হওয়ার কিছুদিনের মধ্যেই গ্রেপ্তার হন তার অর্থনৈতিক উপদেষ্টা সিন টার্নেল। অস্ট্রেলিয়ার এই অর্থনীতিবিদ সব মিলিয়ে মোট ৬৫০ দিন বন্দি ছিলেন। তার সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী একটি ছবি তুলে পোস্ট করেছেন।

টার্নেল জানিয়েছেন, দিন গুনতেন তিনি। জানতেন, একদিন তার মুক্তি হবে। খুব বড়সড় চেহারার মানুষ নন টার্নেল। জেলে থেকে তার স্বাস্থ্য সম্পূর্ণ ভেঙে গেছে। টার্নেল অবশ্য জানিয়েছেন, শারীরিকভাবে খানিকটা বিধ্বস্ত হলেও মানসিকভাবে তিনি সুস্থ আছেন।

এছাড়া দেশে ফিরে গেছেন জাপানের সাংবাদিক তথা ফিল্মমেকার কুবোতা। টোকিও পৌঁছে তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেছেন। তিনি ধন্যবাদ জানিয়েছেন সেনা সরকারকে তাকে মুক্তি দেওয়ার জন্য।

কুবোতা অবশ্য তার জেলের জীবন নিয়ে খুব বেশি কথা বলেননি। বরং তিনি ধন্যবাদ দিয়েছেন গণমাধ্যম এবং তার দেশের সরকারকে। তার দাবি, তারা দীর্ঘদিন ধরে কুবোতার জন্য সওয়াল করেছেন বলেই আজ তিনি মুক্তি পেয়েছেন।

রাজনৈতিক বন্দিদের মুক্তি দেওয়ার জন্য অনেকদিন ধরেই মিয়ানমারের সেনা সরকারের উপর চাপ দেওয়া হচ্ছিল। তারা প্রায় দশ হাজার রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বকে বন্দি করেছেন। তাদের মধ্য থেকেই ছয় হাজার বন্দিকে মঙ্গলবার মুক্তি দেওয়া হয়েছে।

২০২১ সালের ফেব্রুয়ারি অভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতা দখলের পর সব মিলিয়ে চারজন বিদেশি সাংবাদিককে আটক করেছিল মিয়ানমার। তাদের সবাইকেই মুক্তি দেওয়া হলো।

সর্বশেষ - প্রচ্ছদ

আপনার জন্য নির্বাচিত