ঘরোয়া উপায়ে সৌন্দর্য রক্ষা

বাংলার কথা ডেস্ক ০ 

সুন্দর থাকতে কে-না চায়? সুন্দর থাকা মানে শুধু ফ্যাশনেবল ড্রেস আর দামি জুয়েলারি বা মেকআপ নয়। সৌন্দর্য আপনার ব্যক্তিত্বকে প্রকাশ করে। খাওয়া-পরা-থাকার মতো নিজের প্রতি যত্ন নেয়াও একটা সু-অভ্যাস। বিউটি ট্রিটমেন্টের জন্য সবসময় যে পার্লারে যেতে হবে এমন নয়। ঘরে অবসরে বসে নিজের প্রতি যত্নশীল হন। হাতের কাছের উপকরণ দিয়ে শুরু হতে পারে আপনার রূপচর্চা।

আপনার রূপচর্চার সুবিধার জন্য কিছু ঘরোয়া উপায়-

* মুগ ডাল বা মসুর ডাল আগের দিন রাতে ভিজিয়ে রেখে পরের দিন ঘন করে বাটুন। চাইলে ব্লেন্ড করে নিতে পারেন। এর মধ্যে সামান্য হলুদ ও দুধ মিশিয়ে ঘন পেস্ট তৈরি করুন। গোসলের সময় সাবানের পরিবর্তে এ মিশ্রণ ব্যবহার করুন।

* নারকেল তেল বা সরষের তেলের বদলে ছানার পানি ময়দা মিশিয়ে ভালোভাবে শরীরে ম্যাসাজ করুন। ত্বক নরম ও মসৃণ থাকবে। ত্বকের খসখসে ভাব দূর করার জন্য তিল বাটা ভালো কাজ করে।

* ঘরোয়া ক্লিনজার হিসেবে ডিমের সাদা অংশ ভালোভাবে ফেটিয়ে ব্যবহার করুন।

* অর্ধেক কাপ দুধে ৫ ফোঁটা তেল মেশান। গোসলের সময় পানিতে ১ টেবিল চামচ ওটমিল মিশিয়ে নিন।

* মুখ পরিষ্কার করার জন্য দইও খুব ভালো। ২ চা-চামচ দইয়ের মধ্যে আধা চা-চামচ মধু ও লেবুর রস মিশিয়ে মুখে ১৫ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। তারপর ধুয়ে নিন।

* ডেড সেল ঝরিয়ে ত্বক মসৃণ রাখার জন্য স্ক্র্যাবার প্রয়োজনীয়। ৪ টেবিল চামচ বেসন বা ওটমিলের সঙ্গে ১ চা-চামচ চন্দন গুঁড়ো, ১ চা-চামচ গোলাপজল মিশিয়ে নিন। পেস্টের মতো তৈরি হবে। মুখে পানির ঝাপটা দিয়ে এই স্ক্র্যাব লাগান। হালকা ঘষে পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

* কলা, পেঁপে, কমলা, আঙুরের মতো ফল মিশিয়ে পাল্প তৈরি করুন। অনেক ফলের মিশ্রণও ব্যবহার করতে পারেন আবার একট ফলের পাল্পও ব্যবহার করতে পারেন। ফলের প্যাক ১ ঘণ্টা মুখে লাগিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

* ১০০ মিলি গোলাপজল, আধা চা-চামচ গ্লিসারিন মিশিয়ে কাচের বোতলে রাখুন। ভালোভাবে ঝাঁকিয়ে নিন। তৈলাক্ত বা মিশ্র প্রকৃতির ত্বকে ব্যবহারের আগে এর সঙ্গে লেবুর রস ব্যবহার করুন।

* সমান পরিমাণ নারকেল তেল ও গোলাপজল মিশিয়ে গোসলের পর ময়েশ্চারাইজার হিসেবে ব্যবহার করুন।

* মধুর সঙ্গে সামান্য কলা ম্যাশ করে নিয়ে চুলে কিছুক্ষণ লাগিয়ে ধুয়ে ফেলুন। কন্ডিশনার হিসেবে ভালো।

* মেহেদিতে অল্প দই, এক চিমটি চিনি ও পরিমাণমতো পানি মিশিয়ে স্ক্যাল্পে ২০ মিনিট লাগিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

* শীতের এ সময়টাতে ত্বকের উজ্জ্বলতার জন্য লেবুর রস, নিমপাতার রস, মুলতানি মাটি মিশিয়ে পুরো মুখে লাগিয়ে রাখতে পারেন। আধা ঘণ্টা পর ধুয়ে ফেলুন।

* ব্ল্যাক হেডস দূর করার জন্য কর্নফ্লাওয়ার, গুঁড়ো চিনি এবং কয়েক ফোঁটা ভিনেগার মিশিয়ে নাকে লাগান আধা ঘণ্টা রেখে অল্প ম্যাসাজ করে ধুয়ে ফেলুন।

* ত্বকের ক্লান্তিভাবে দূর করতে মসুর ডাল বাটা ও ধনেপাতার রস মিশিয়ে আধা ঘণ্টা লাগিয়ে রাখুন। ঠাণ্ডা পানিতে ধুয়ে ফেলুন।

* সানবার্নের সমস্যা দূর করতে চাইলে শসা কুরিয়ে এর মধ্যে ১ কাপ দুধ মেশান। এবার এই মিশ্রণ ৮ ঘণ্টা রেখে ছেঁকে নিন। এবার সানবার্নের ওপর লাগান, উপকার পাবেন।

* ঘামের গন্ধ দূর করতে সারারাত তুলসীপাতা ভিজিয়ে রাখুন। এবার এই পানি মুলতানি মাটি, এলাচ বেটে গোসলের সময় ব্যবহার করুন।

* বেকিং সোডা, লেবুর রস, মিশিয়ে ব্যবহার করুন। আন্ডার আর্ম পরিষ্কার রাখার জন্য আলুর স্লাইস ব্যবহার করুন।

* পাফি আইচে জরুরি কোল্ড কমপ্রেস, ঠাণ্ডা শসা চোখের ওপর কিছুক্ষণ রাখতে পারেন। ঠাণ্ডা টি ব্যাগও ব্যবহার করতে পারেন।

* ডার্ক সার্কেলের সমস্যা কাটাতে টমেটোর রস, লেবুর রস ও অল্প বেসন মিশিয়ে চোখের তলায় লাগান। পুরো শুকানোর আগে ধুয়ে ফেলুন।

* মসুর ডাল বাটা ও নিমপাতা বাটা একসঙ্গে মিশিয়ে পা ম্যাসাজ করুন। হলুদ বাটার সঙ্গে দুধের সর মিশিয়েও ব্যবহার করতে পারেন।

* ডিমের কুসুম, ২ টেবিল চামচ নারকেল তেলের সঙ্গে মিশিয়ে চুলে ভালোভাবে লাগিয়ে নিন। আধা ঘণ্টা পর শ্যাম্পু করে নিন। নারকেল তেল অল্প গরম করে লেবুর রস মিশিয়ে ব্যবহার করুন। চুল পড়া কমবে।

* খুশকি দূর করার জন্য ১ টেবিল চামচ মেথি গুঁড়ো করে ৪ কাপ পানিতে সারারাত ভিজিয়ে রাখুন। পরদিন চুল ধোয়ার জন্য এ পানি ব্যবহার করুন।

* ঠোঁটের যত্নে প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে আমন্ড বেটে হালকা হাতে ঠোঁটে ম্যাসাজ করুন। দুধের সরও লাগাতে পারেন।

* পিউমিস স্টোন বা ফুট ব্রাশ দিয়ে গোসলের সময় নিয়মিত পা পরিষ্কার করুন।

* স্ট্রেচ মার্কস দূর করার জন্য নিয়মিত নারকেল তেল ম্যাসাজ করুন।

ঘরোয়াভাবে অবসরে রূপ সচেতনতায় রূপচর্চা করুন। ত্বক ও চুল উজ্জ্বল মসৃণ রাখুন।

সূত্র:আনন্দধারা।

বাংলার কথা/মে ২১, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Follow by Email