কমপ্যাক্ট পাউডার, কোন স্কিন টোনে কোনটা দিবেন?

বাংলার কথা ডেস্ক ০

মেকআপ প্রিয় সব নারীদের কাছেই কমবেশী কমপ্যাক্ট পাউডার পাওয়া যায়। একে কমপ্যাক্ট বলা হয় কারণ এটি জমাট বাধা এবং সেমি-সলিড অবস্থায় থাকে। মেকআপ সেটিং করার জন্য, মেকআপের উপর হালকা টাচআপ হিসেবে কমপ্যাক্ট পাউডার খুব জনপ্রিয়। আপনার স্কিন টাইপ যেমনই হোক না কেন কমপ্যাক্ট পাউডার যে কোন ত্বকেই মানিয়ে যায়।

আপনার স্কিন যদি নিস্তেজ বা আনফ্রেশ দেখায় তাহলে কমপ্যাক্ট পাউডার হতে পারে বেস্ট সলিউশন। একদম শুরু থেকে মেকআপের সম্পূর্ণ কভারেজ, অয়েলি স্কিন থেকে ড্রাই স্কিন-সব ক্ষেত্রেই আপনি ইউজ করতে পারেন এই কমপ্যাক্ট পাউডার।

যাই হোক, এবার তাহলে কিছু পয়েন্ট দেখে নেয়া যাক কীভাবে আপনি আপনার স্কিন অনুযায়ী কমপ্যাক্ট পাউডার সিলেক্ট করবেন এবং সেটা ব্যবহার করবেন।

*কমপ্যাক্ট পাউডারের পারফেক্ট শেডটি সিলেক্ট করুন। শুধুমাত্র ব্রান্ড দেখে নয়, সবসময় আপনার স্কিনের সাথে ম্যাচ করে কমপ্যাক্ট পাউডারের শেড সিলেক্ট করুন।

*আপনি যদি আপনার স্কিনের চাইতে কিছু শেড লাইট কমপ্যাক্ট পাউডার সিলেক্ট করেন তাহলে আপনার ত্বক মাঝে মধ্যে ধূসর বা ছাই রঙ এর দেখাতে পারে।

*কমপ্যাক্ট পাউডার কেনার আগে আপনার স্কিন টাইপ এবং কভারেজ লেভেল সম্পর্কে জানুন।

*আপনার স্কিন যদি কিছুটা লাইটার শেডের হয় তাহলে আপনি পিংক আন্ডারটোনের শেড অথবা আপনার স্কিন টোনের চেয়ে ১ বা ২ শেড লাইটার শেড বাছাই করতে পারেন। আর আপনার স্কিন যদি কিছুটা ডিপ হয় তাহলে ইয়েলো বা অরেঞ্জ আন্ডারটোনের শেড আপনি সিলেক্ট করতে পারেন যেটা আপনার ত্বকের সাথে ম্যাচ করবে।

*সবসময় চেষ্টা করুন পণ্যটি আপনার মুখে ইউজ করতে, হাতের পেছনের দিকে নয়।

*সাজেশন পেতে আপনি কোন মেকআপ আর্টিস্টের হেল্প নিতে পারেন।

*প্রতিটি কমপ্যাক্ট পাউডারের কভারেজ লেভেল আলাদা হয়। ভালো ফিনিশিং পাওয়ার জন্য আপনি কমপ্যাক্ট পাউডারের সাথে ট্রান্সলুসেন্ট পাউডার ব্যবহার করতে পারেন। এটি ভালো ফিনিশিং পেতে সাহায্য করে।

বার চলুন দেখে নেয়া যাক কিভাবে বিভিন্ন স্কিন টাইপ অনুযায়ী কমপ্যাক্ট পাউডার কিভাবে ব্যবহার করবেন-

তৈলাক্ত ত্বকের জন্য

*অয়েল কনট্রোল কমপ্যাক্ট পাউডার ত্বকের জন্য খুব ভালো ফাউন্ডেশনের কাজ করে। এটি ত্বকের অতিরিক্ত তেল শোষণ করে ত্বককে অয়েল ফ্রি লুক এনে দেয় নিমেষেই। এটি ত্বকের তেল ভাব কমিয়ে চেহারা উজ্জ্বল দেখাতে সাহায্য করে।

*মেকআপ শুরু করার আগে একটি প্রাইমার ইউজ করুন। এটিও ত্বকের তেল নিয়ন্ত্রণ করে।

*কমপ্যাক্ট পাউডার ভালোভাবে ফেইসে সমানভাবে সেট করার জন্য একটি মেকআপ ব্রাশ বা স্পঞ্জ ব্যবহার করুন। টি-জোনে এক্সট্রা কোট অ্যাপ্লাই করুন।

*মুখে কমপ্যাক্ট পাউডার লাগানোর আগে একটি বরফ ঘষে নিন। এটি ত্বকের পোর-গুলোকে ছোট করে দেয় এবং পাউডার ভালোভাবে সেট হতে সাহায্য করে।

শুষ্ক ত্বকের জন্য

আপনার ত্বকে কমপ্যাক্ট পাউডার দিয়ে কোন ম্যাট ফিনিশিং দেয়ার ট্রাই করবেন না। এতে ত্বক আরো শুষ্ক হয়ে যাবে। কোন ক্রিম বেসড কমপ্যাক্ট ইউজ করার চেষ্টা করুন। এটি আপনার স্কিনকে একটি হেলদি লুক এনে দিবে।

মেকআপ শুরু করার আগে ত্বকে ময়েশ্চারাইজার মালিশ করে তারপর আপনার মেকআপ শুরু করুন। এটা কিছুটা সেট হতে দিন, তারপর কমপ্যাক্ট পাউডার ইউজ করুন। এটি আপনার ত্বককে হাইড্রেটেড এবং স্মুথ করবে এবং শুষ্ক হয়ে যাওয়ার হাত থেকে রক্ষা করবে। আপনার ত্বক ন্যাচারাল দেখাতে ত্বকে ফাউন্ডেশন বারবার অ্যাপ্লাই না করে জাস্ট ২ থেকে ৩ বার কোট করুন।

যেসব এড়িয়া খুব সহজে শুষ্ক হয়ে যায় সেসব এলাকায় এই পাউডার অ্যাপ্লাই করবেন না, যেমন- গাল এবং নাকের চারপাশের এড়িয়া। আপনার ত্বককে গ্লোয়িং করে তুলতে হাইলাইটার বা মিনারেল বেজড কমপ্যাক্ট পাউডার ব্যবহার করাটা হবে আপনার জন্য গুড চয়েজ।

সেনসিটিভ ত্বকের জন্য

আপনার জন্য মিনারেল বেজড পাউডার বেস্ট হবে কারণ এতে এক্সট্রা সুবাস, সাইড ইফেক্ট এবং প্রিজারভেটিভ থাকে না।

আপনার জন্য আরকটা অপশন হলো Comedogenic-বিহীন এবং Acnegenic-বিহীন পাউডার বাছাই করা যা সংবেদনশীল ত্বকের জন্য ভালো।

ত্বক ড্রাই বা অয়েলি যাই হোক না কেন, সবসময় চেষ্টা করুন ত্বকের সেনসিটিভিটি অনুযায়ী স্কিন-ফ্রেন্ডলি কমপ্যাক্ট পাউডার বাছাই করার জন্য।

সূত্র:সাজগোজ।

বাংলার কথা/অক্টোবর ১২, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Follow by Email
%d bloggers like this: