ইদানিং আমি কবি

ইদানিং আমি কবি!
-তাজুল ইসলাম

মননে গড়নে ধ্যানে
আমি কবি নই
মগজে গরজেও
আমি কবি নই
তবে ইদানিং যেন আমি কবি!

স্নায়ুতন্ত্রে মৃদু ঝলোকানি
কাঁপে শিরা-উপশিরা, ধমনী
কে যেন ঠেলে দেয়-
ঢেলে দেয় ধ্বনি!
ইদানিং যেন আমি কবি!

আমি ভাবি-
পলকে পলকে বহুদূরে দেখি
বিবেকের চোখে যা পাই লিখি।

চৈত্রের দুপুরে
আমি রাখালের বাঁশি শুনি
ফিরি যখন শৈশবে কৈশরে
ফাগুনে বৈশাখে-
হা-ডুডু, দাঁড়িয়াবান্দা আর গোল্লাছুটে
ইদানিং যেন আমি কবি!

আষাঢ়ে আকাশে-
মেঘের গুড়ু গুড়ু ডাক
ঝম্ ঝম্ অবিরাম বৃষ্টি,
রংধনু রংগে-
প্রকৃতির অঙ্গে অপরূপ সৃষ্টি!
এসবে আমি ইদানিং কবি!

বাড়ির পেছনে ঘাঘট নদী ঐ
সামনে বিল বিন্নাগাড়ি-
টেংরা, পুটি, মাগুর-শিংগি, কৈ!
সেথায় রাত-দুপুরে পানকৌড়ির
ডুব্ ডুব্ হাঁক
আমায় ডাকে যত কাজ থাক।

শ্রাবণের বানে-
কলাগাছের ভেলায় ভাসি
নুরু, নেছার, সাবু, লেবু
সকলে মিলে-
দীঘিতে যেন সারাদিন হাবুডুবু।

আউশের মারা কেটে সবে গোলা
ডুবু ডুুবু পাট ক্ষেত উঁকি মেরে খারা,
গোটা বিল কুচুরি পানায় গেছে ভরি
চঞ্চলা হরহরি খেলে কত লুকোচুরি!
এতকিছু নিয়ে-
আজ-কাল মাথাটা আমার বড্ড ভারি,
আমি কিন্তু কবি নই-
ইদানিং আমি কবি!

বাংলার কথা/আগস্ট ০২, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Follow by Email