ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে চাল আত্মসাতের মিথ্যা অভিযোগ


নিজস্ব প্রতিবেদক o

রাজশাহীর পবার ১নং দর্শন পাড়া ইউপি চেয়ারম্যান কামরুল হাসান রাজের বিরুদ্ধে ১০ টাকা কেজি দরের চাল আত্মসাৎ এর অভিযোগ উঠেছে। এ অভিযোগটি মিথ্যা বলে দাবি করেছেন চেয়ারম্যান কামরুল হাসান রাজ। চেয়ারম্যান বলেন, এই ইউনিয়নের প্রায় ৪০ জন ১০ টাকা কেজি দরের চাল কার্ডধারী রয়েছেন। তাদের মধ্যে কয়েকজনের নাম পরিবর্তন করা হয়েছে মাত্র। তার বিরুদ্ধে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে যে, অভিযোগ করা হয়েছে, সেখানে কোথাও চাল আত্নসাতের বিষয়টি উল্লেখ নাই।

উদ্দেশ্য প্রণোনিত ভাবে একটি কুচক্রী মহল তাকে সমাজের চোখে এবং রাজনৈতিক ভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার জন্য এরুপ করছে। তারা কার প্ররোচনায় মনগড়া অভিযোগের ভিত্তিতে খবর প্রকাশ করছে তা তিনি জানেন না বলে জানান। এ বিষয়ে

চেয়ারম্যান আরো বলেন, করোনা ভাইরাসের সময় থেকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় আমি দলমত নির্বিশেষে সঠিক ভাবে ত্রাণ বিতরণ করে আসছি। আমি চ্যালেঞ্জ করে বলতে পারি আমি কোন চাল আত্মসাৎ করি নাই। কিছু নাম পরিবর্তন করেছি মাত্র। আমি এতটা অসহায় পরিবারের সন্তান নয় যে আমাকে চাল আত্মসাৎ করে খেতে হবে।

এ বিষয়ে সরে জমিনে তথ্য অনুসন্ধানে গেলে এলাকাবাসী বলেন, চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে কামাল যে, চাল আত্মসাৎ এর অভিযোগ করেছেন সেটা তার মনগড়া অভিযোগ। স্বার্থের ব্যাঘাত ঘটার কারণে এমন অভিযোগ করেছে বলে মন্তব্য করেন একাধিক ব্যক্তি।

তারা আরো বলেন, চেয়ারম্যান শুধু ১০ টাকা কেজি দরের চাল নয় করোনা কালীন ত্রাণ সামগ্রী এবং ভিজিডি ও ভিজিএফ চাল প্রতিবার সঠিকভাবে বিতরণ করেন। আর এই চাল ডিলারের মাধ্যমে বিক্রি হয়ে থাকে বলে জানান তারা।

এদিকে ১০টাকা কেজি গ্রহনকারীদের মধ্যে থেকে তেতুলিয়া পাড়ার হাবিবুর রহমান, দর্শন পাড়ার ফিরোজ আলী, চক দর্শনপাড়ার মহির ও দর্শনপাড়া নামোপাড়ার আকবর আলীসহ আরো অনেকে বলেন, তারা ডিলারের নিকট থেকে নিয়ম মাফিক চাল ক্রয় করে থাকনে। চেয়ারম্যান কখনো সেখানে হস্তক্ষেপ করেন না। সঠিকভাকে চাল কার্ডধারীদের ডিলার দিচ্ছেন কিনা তা চেয়ারম্যান মাঝেমধ্যে তদারকী করেন বলে জানান এই কার্ডধারীরা।

বাংলার কথা/ অক্টোবর ০১, ২০২০

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Follow by Email
%d bloggers like this: