আজ মিষ্টি মেয়ে কবরীর জন্মদিন

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn
Share on whatsapp
WhatsApp

নিউজ ডেস্ক :
মিষ্টি মেয়ে সারাহ বেগম কবরী। আজ তার জন্মদিন। আগের মতো জন্মদিনে আর দেখা মিলবে না চিরচেনা মিষ্টি হাসিটুকুর। এই জন্মদিন আনন্দে মাতে না মন, কেবল দুঃখ গুলো ভিড় করে মনের আঙ্গিনায়। এই জন্মদিনে তার শূণ্যতাই অনুভব হয় বারংবার। ৭০ বছরে পা রেখে গত ১৭ এপ্রিল না ফেরার দেশে চলে যান তিনি।

 

চট্টগ্রামের বাশঁখালীর মেয়ে কবরীর জন্ম ১৯৫০ সালের ১৯ জুলাই। পিতা শ্রীকৃষ্ণ দাস পাল ও মাতা শ্রীমতি লাবণ্য প্রভা পালের কন্যা মিনা পাল। মিনা পালই আমাদের মাঝে উপস্থিত হয়েছিল কবরী হয়। সাথে মিষ্টি হাসির জন্য নামের পাশে জুড়ে দেওয়া হয়েছিল মিষ্টি মেয়ে। সেই থেকে মিষ্টি মেয়ে কবরী। ১৯৬৩ সালে মাত্র ১৩ বছর বয়সেই সঙ্গিতের ছন্দে মঞ্চে মাতিয়েছেন নিক্বণ ধ্বনিতে।

 

 

এরপর থেকে ধীরে ধীরে টেলিভিশন এবং সিনেমা জগতে কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখেছেন তিনি৷ ১৯৬৪ সালে সুভাষ দত্তের পরিচালনায় ‘সুতরাং’ সিনেমার নায়িকা হিসেবে অভিনয় জীবনের শুরু সাহারা বেগম কবরীর। এরপর অভিনয় করেছেন ‘হীরামন’, ‘ময়নামতি’, ‘চোরাবালি’, ‘সারেং বৌ’, ‘পারুলের সংসার’, ‘বিনিময়’, ‘আগন্তুক’ সহ জহির রায়হানের তৈরি উর্দু সিনেমা ‘বাহানা’ এবং ভারতের চলচ্চিত্র নির্মাতা ঋত্বিক ঘটকের সিনেমা ‘তিতাস একটি নদীর নাম’ সহ অসংখ্য কালজয়ী সিনেমায় অভিনয় করেছেন তিনি।

 

 

তার অভিনীত তিতাস একটি নদীর নাম ও সাত ভাই চম্পা চলচ্চিত্র দুটি ব্রিটিশ ফিল্ম ইনস্টিটিউট-এর সেরা দশ বাংলাদেশি চলচ্চিত্র তালিকায় যথাক্রমে প্রথম ও দশম স্থান লাভ করে।

 

 

চলচ্চিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি রাজনীতিতেও সক্রিয় ছিলেন। তিনি ২০০৮ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের রাজনীতিবিদ হিসেবে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসন থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং ২০১৪ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন।

 

কবরী বিয়ে করেন চিত্ত চৌধুরীকে। সম্পর্ক বিচ্ছেদের পর ১৯৭৮ সালে তিনি বিয়ে করেন সফিউদ্দীন সরোয়ারকে। ২০০৮ সালে তাঁদেরও বিচ্ছেদ হয়ে যায়। দুই বার ঘর বেধেও মজবুত হয়ে উঠেনি বাধন। পাচঁ সন্তানের জননী নিজেই ছিলেন নিজের জন্য যথেষ্ট। সাথে ছিল অনুরাগীদের ভালোবাসা। ২০১৭ সালে অমর একুশে গ্রন্থমেলায় সকলের জন্য রেখে গিয়েছেন নিজের জীবনের গল্পগাথা ‘স্মৃতিটুকু থাক’।

 

 

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর তার ফুসফুসেরও মারাত্মক ক্ষতি হয়। গত ৫ এপ্রিল দুপুরে করোনা আক্রান্ত হন অভিনেত্রী। সেদিন রাতেই কুর্মিটোলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাকে। পরে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটলে রাজধানীর শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। সেখানে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন চলচ্চিত্র নির্মাতা ও সাবেক সাংসদ কবরী। আর সেখানেই ১৭ এপ্রিল ২০২১ তার মৃত্যু হয়।

বাংলার কথা/১৯জুলাই/২০২১

এই রকম আরও খবর

Share on facebook
Facebook
Share on twitter
Twitter
Share on linkedin
LinkedIn